JanaBD.ComLoginSign Up

রমজানে শরীয়তপুরে খাবার হোটেলে অতিরিক্ত নিরাপত্তা!

দেশের খবর 15th Jun 2016 at 8:04pm 302
রমজানে শরীয়তপুরে খাবার হোটেলে অতিরিক্ত নিরাপত্তা!

ইসলামের পাঁচটি মূল ভিত্তির মধ্যে রমজান একটি। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন নিজ হাতে রোজাদারকে পুরস্কৃত করবেন বলে পবিত্র কোরআনে ঘোষনা দিয়েছেন।

মহানবী হযরত মোহাম্মদ (সঃ) বলেছেন, ‘রোজা মানুষের জন্য ঢাল স্বরূপ। রোজা মুসলমানদের শরীরের যাকাত স্বরূপ। একজন রোজাদার জাহান্নামের আগুনে জ্বলবে না।

রমজানের প্রথম ১০ দিন রহমত, দ্বিতীয় ১০ দিন মাগফেরাত ও তৃতীয় (শেষ) ১০ দিন জাহান্নাম থেকে মুক্তি’।

আর সেই রোজা অনেকেই রাখেন না। হোটেলে গিয়ে পর্দার আড়ালে বসে অনেক মুসলিম রোজার দিনে খাবার খায়।

অবুঝ মুসলিমগণ মনে করে প্রকাশে খেতে দেখলে মানুষ খারাপ বলবে, লজ্বা দিবে তাই মানুষের ভয়ে পর্দা দিয়ে খায়।

পর্দার আড়ালে মানুষ দেখে না অথচ আমাদের সৃষ্টি কর্তা সর্বক্ষন বান্দাদের দেখেন। অবুঝ মুসলিমদের প্রতি ভৎসনা করে এমন কথাই বললেন শরীয়তপুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব আলহাজ্ব খন্দকার মাওলানা শহীদুল্লাহ।

রমজান মাসে শরীয়তপুরের বিভিন্ন বাজারে খাবার হোটেল গুলো ভক্ষনকারীদের নিরাপত্তার জন্য পর্দার আড়াল করে দেয়। ভক্ষনকারীগণ লোক আড়ালে নিরাপদে খেতে পারে সে জন্য খাবার ঢেকে রাখে।

অথচ খাবার হোটেল গুলোতে মালিক পক্ষ ভোক্তাগণের উদ্দেশ্যে নীতি বাক্য লিখে রাখেন, ‘পবিত্রতা ঈমানের অঙ্গ, রাজনৈতিক আলাপ নিষেধ, ভদ্রতা বজায় রাখুন ইত্যাদি’।

সেই হোটেল মালিকগণই নৈতিকতা ভূলে রোজার মাসে অতিরিক্ত লাভবান হতে খাবার তৈরী করে পর্দার আড়ালে মুসলিমদের সরবরাহ করে থাকে।

অথচ আল্লাহর হুকুম ফরজ রোজা অমান্য করে যে সকল হোটেল মালিকগণ ভোক্তার জন্য খাবার সরবরাহ করেন সেও সমপরিমান পাপি হবেন রোজার দিনে খেয়ে একজন মুসলিম যে পরিমান পাপ করেন। এমনি পর্দার আড়াল পরিবেশ চা-নাস্তার দোকানেও চোখে পড়ে।

মুসল্লিদের সাথে আলাপ কালে জানায়, মুসলিম দেশ হিসেবে রোজার মাসে খাবার দোকানগুলো নিয়ন্ত্রণ করতে সরকারী পদক্ষেপ থাকা দরকার। বিশেষ করে ইসলামিক ফাউন্ডেশন এ বিষয়ে ভূমিকা রাখতে পারে। কোন আলেম সমাজ বা ব্যক্তি এসকল অনিয়মন দূর করা অসম্ভব।

প্রশাসনের সহায়তা রোজার দিনে খাবার হোটেল বন্ধ করা সম্ভব।

শরীয়তপুর ইসলামিক ফাউন্ডেশন উপ-পরিচালক মোঃ সাহাবুদ্দিন বলেন, রমজানে খাবার হোটেল বন্ধ রাখতে প্রশাসন পারে। মঙ্গলবার যাকাত বিতরণ বিষয়ে জেলা প্রশাসকের মিটিং আছে আসি সেখানে বিষয়টি আলোচনা করব। শিশু, রোগী ও অমুসলিমদের খাবারের জন্য হোটেল খোলা রাখবে। আইনতো অনেক কিছুই রয়েছে তবে প্রয়োগ নাই।

Googleplus Pint
Noyon Khan
Manager
Like - Dislike Votes 4 - Rating 5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)