JanaBD.ComLoginSign Up

Internet.Org দিয়ে ব্রাউজ করুন আমাদের সাইট ফ্রী , "জানাবিডি ডট কম"

প্রথমে কু-প্রস্তাব, পরে তরুণীকে অপহরণ করে চাচা-ফুফা মিলে ধর্ষণ

দেশের খবর 19th Jun 2016 at 10:48am 473
প্রথমে কু-প্রস্তাব, পরে তরুণীকে অপহরণ করে চাচা-ফুফা মিলে ধর্ষণ

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি: ১৫ বছর বয়সী এক তরুণীকে প্রথমে কু-প্রস্তাব দেন প্রতিবেশী চাচা ও ফুফা, পরে মেয়েটি তার পরিবারকে জানালে এ নিয়ে ঘরোয়া সালিশ বসে মিমাংসা করা হয়। আর তার দুই মাস পরেই মেয়েটিকে অপহরণ করে ঢাকায় নিয়ে ধর্ষণ করেছেন ওই দুই লম্পট। এই ঘটনা ধামাচাপা দিতে ওই তরুণীকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ঢাকার একটি বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ দেন তারা।

কিন্তু, ২১ দিন পর শুক্রবার দুপুরে অসুস্থ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে পুলিশ। দুই দিন ধরে ওই তরুণী উথলীস্থ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। মেয়েটির বাড়ি মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার বওড়া গ্রামে।

এর আগে গত ২৭ মে দুপুরে প্রতিবেশী চাচা আসর উদ্দিনের ছেলে নাসির উদ্দিন (৩৫) ও ফুফা নজর আলী খানের ছেলে আবুল হাসেম (৫০) আরও ৪/৫ জনের সহযোগিতায় অপহরণ করে তাকে ঢাকায় নিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেছেন বলে ভুক্তভোগী ও স্বজনরা জানিয়েছেন। এ ঘটনায় পুলিশ নাসির উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করেছে।

ওই তরুণীর বাবা জানান, তার মেয়ে বছর খানেক আগে ঢাকার মিডফোর্ড এলাকার হাজী নুরুল ইসলামের বাসায় পরিচারিকার কাজ করতেন। এরপর মাস খানেক ধরে নবীনগর এলাকায় এক জুতা তৈরি কারখানায় কাজ করছেন। দুই মাস আগে মেয়েটা বাড়ি এলে নাসির উদ্দিন ও আরেক প্রতিবেশী আনসার আলীর ছেলে তাহাজ উদ্দিন (৩০) কু-প্রস্তাব দেন। এ নিয়ে ঘরোয়া সালিশ বসে মিমাংসা করা হয়।

এরই মধ্যে গত ২৭ মে নাসির ও হাসেম সহযোগীদের সঙ্গে নিয়ে মেয়েটা অপহরণ করে ঢাকার একটি বাসার কক্ষে আটকে রাখেন। সেখানে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন নাসির ও হাসেম। এরপর এই ঘটনা কাউকে না বলতে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে তাকে অন্য একটা বাসায় নিয়ে পরিচারিকার কাজ দেন তারা। সেখান থেকে তারা মেয়েটাকে নিয়ে আবার হাজী নুরুল ইসলামের বাসায় রেখে যান।

এ ঘটনায় নাসির, তাহাজ ও গাঙধাইর এলাকার সাহাজ উদ্দিনের ছেলে আমজাদ হোসেনসহ (৫০) অজ্ঞাতনামা সহযোগীদের বিরুদ্ধে মানিকগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন ওই তরুণীর বাবা।

পুলিশ গত বুধবার রাতে নাসিরকে গ্রেপ্তার করে। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ ওই হাজী নুরুল ইসলামের বাসায় থেকে মেয়েটা উদ্ধার করে বলেও জানান ওই তরুণীর বাবা।

শিবালয় থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আলমগীর হোসেন জানান, মেয়েটাকে উদ্ধারের পর অসুস্থ থাকায় কথা বলা সম্ভব হয়নি। একটু সুস্থ হলেই তার সঙ্গে কথা বলে তদন্ত করা হবে।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 6 - Rating 6.7 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)