JanaBD.ComLoginSign Up

বাড়ির দারোয়ান থেকে যেভাবে বলিউডের সফল অভিনেতা হলেন তিনি

বিবিধ বিনোদন 20th Jun 2016 at 2:20pm 507
বাড়ির দারোয়ান থেকে যেভাবে বলিউডের সফল অভিনেতা হলেন তিনি

বলিউডের আলোচিত অভিনেতা নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী। বর্তমানে তিনি একজন সফল অভিনেতা। তার কদর এখন অনেক। তার অভিনয়ের দক্ষতায় দর্শক ও নির্মাতাদের মুগ্ধ করার মাধ্যমে এই যোগ্যতা তিনি অর্জন করেছেন।

নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী সম্পর্কে অনেকেই জানেন না। কে ছিলেন তিনি? কি করতেন? তবে সে সম্পর্কে তিনিই জানিয়েছেন সম্প্রতি। তিনি জানিয়েছেন একসময় তিনি গার্ড (দারোয়ান)’র চাকরি করতেন। আর আজ সেখান থেকে তিনি উঠে এসে একজন সফল অভিনেতা হয়েছে বলিউডে।

সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী এ কথা বলেন। তিনি আরও জানিয়েছেন, দিল্লি থেকে মুম্বইয়ে এসে যখন মঞ্চে তিনি অভিনয় শুরু করেন তখন জীবন চালনার জন্য একটি বাড়িতে গার্ডের (দারোয়ান) চাকরি নিয়েছিলেন তিনি। এর আগে দিল্লিতে একটি কারখানার কেমিস্ট হিসেবে কাজ করেন।

দীর্ঘ প্রায় ১৫ বছর স্ট্রাগল করার পর নওয়াজউদ্দিন সফলতা পান। নব্বইয়ের দশকের শেষের দিক থেকে বিভিন্ন ছবির জুনিয়র শিল্পী হিসেবে কাজ করেন তিনি। ১৯৯৯ সালে আমির খানের ‘সারফারোশ’ ছবিতে একজন আসামির চরিত্রে একটি দৃশ্যে দেখা গিয়েছিল তাকে। এরপর এরকম একটি কিংবা দুটি দৃশ্যে অনেক ছবিতে কাজ করেন তিনি। কিন্তু কোনোভাবেই লাইমলাইটে আসতে পারছিলেন না।

অবশেষে ২০০৭ সালে ‘গ্যাংস অফ ওয়াসিপুর’ ছবিতে ফয়সাল খান চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ আসে। আর সেটিই কাজে লাগান তিনি। ছবিতে তার অভিনয় দেশ-বিদেশে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়। এরপর ছবিটির সিকুয়্যালেও অভিনয় করেন। অভিনয় করেন আমির খানের ‘তালাশ’ ছবিতেও।

তবে সাজিদ নাদিয়াদওয়ালা তাকে সবচেয়ে বড় সুযোগ দেন ‘কিক’ ছবিতে। সালমান খান অভিনীত এ ছবিতে প্রধান খল চরিত্রে অভিনয় করে লাইমলাইটে চলে আসেন তিনি। এরপর ‘বাজরাঙ্গি ভাইজান’ ছবিটি তাকে চূড়ান্ত সফলতা এনে দেয়।

এরই মধ্যে ‘মাঝি’ নামক ছবির নাম ভূমিকায় অভিনয় করে আন্তর্জাতিক মহলেও প্রশংসিত হন তিনি। বর্তমানে মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে ‘রইস’ ছবিটি। এখানে শাহরুখ খানের সঙ্গে অভিনয় করেছেন তিনি।

নিজের সংগ্রামের কথা বলতে গিয়ে নওয়াজউদ্দিন বলেন, সফরটা খুব সহজ ছিল না। অনিশ্চিত ছিল। তবে আত্মবিশ্বাসটা প্রচুর ছিল। সে কারণেই জুনিয়র শিল্পী হিসেবে বছরের পর বছর কাজ করেও ধৈর্য্যহারা হইনি। এমনকি অভিনয়ের টানে কেমিস্টের চাকরি ছেড়ে গার্ডের (দারোয়ান) চাকরিও করতে হয়েছিল আমাকে। তবে এগুলো বলতে এতটুকু দ্বিধা কিংবা লজ্জাবোধ হয় না। বরং, গর্ব হয়।

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 8 - Rating 5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)