JanaBD.ComLoginSign Up

ইন্টারনেট দুনিয়ায় যুক্ত হচ্ছে ডট বাংলা ডোমেইন: চালু করতে তারানার চিঠি

ইন্টারনেট দুনিয়া 22nd Jun 2016 at 8:34am 166
ইন্টারনেট দুনিয়ায় যুক্ত হচ্ছে ডট বাংলা ডোমেইন: চালু করতে তারানার চিঠি

বাংলাদেশের বহুল কাঙ্ক্ষিত ডট বাংলা (.বাংলা) ডোমেইন এখনও অন্ধকারে রয়েছে। ডোমেইন ব্যবস্থাপনার আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইন্টারনেট করপোরেশন অব অ্যাসাইনড নেমস অ্যান্ড নাম্বারস (আইসিএএনএন বা আইক্যান)-এর অনুমোদনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কমার্স সেক্রেটারির কাছে ৯ জুন চিঠি লিখেছেন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। মঙ্গলবার তিনি সাংবাদিকদের কাছে এ তথ্য জানান।


) বাংলাদেশের বহুল কাঙ্ক্ষিত ডট বাংলা (.বাংলা) ডোমেইন এখনও অন্ধকারে রয়েছে। বাংলাদেশ থেকে ডোমেইনটি গত ২১ ফেব্রুয়ারি চালু করার ঘোষণা দেওয়া হলেও পরে জানা যায় ডোমেইনের অনুমোদনই মেলেনি! ডোমেইন ব্যবস্থাপনার আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইন্টারনেট করপোরেশন অব অ্যাসাইনড নেমস অ্যান্ড নাম্বারস (আইসিএএনএন বা আইক্যান)-এর অনুমোদনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কমার্স সেক্রেটারির কাছে ৯ জুন চিঠি লিখেছেন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। মঙ্গলবার তিনি সাংবাদিকদের কাছে এ তথ্য জানান।

তারানা হালিম বলেন, ‘আমাদের দিক থেকে সব ধরনের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে এবং তাদের চাহিদা অনুসারে আমরা প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র জমা দিয়েছি। এখন আইসিএএনএন বোর্ড বৈঠকের মাধ্যমে প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে।’ তিনি জানান, আইসিএএনএন-এর বোর্ড সভা এখনও অনুষ্ঠিত হয়নি। ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম তার চিঠিতে লিখেছেন, ‘জাতির আবেগ ও অনুভূতি এই ভাষার সাথে জড়িত এবং সাইবার জগতেও এর মাধ্যমে ভাব প্রকাশ করতে চায়।’ তিনি আরও লিখেন, ‘আপনারা যদি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব দয়া করে ডট বাংলা আইডিএনসিসিটিএলডি-এর জন্য রুট জোন ডেলিগেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করলে আমি খুশি হবো।’ আইসিএএনএন বাংলাদেশের জন্য দুইটি ডোমেইন বরাদ্দ করে। এগুলো হলো ডট বাংলা এবং ডট বিডি।

বাংলাদেশের সব প্রস্তুতি থাকলেও ডোমেইন ন্যাম সিস্টেম পরিচালনাকারী সংস্থার অনুমতি না পাওয়ায় চালু করা যাচ্ছে না ‘ডট বাংলা’। পৃথিবীর একমাত্র জাতি বাঙালি যারা ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ভাষার জন্য জীবন দিয়েছে উল্লেখ করে আইসিএএনএন’র কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়, ‘বাংলাভাষী মানুষ হিসেবে আমরা গর্ববোধ করি, কেননা আমরাই একমাত্র জাতি যারা মাতৃভাষার জন্য ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি রক্ত দিয়েছি। বর্তমানে এটি ইউনেস্কো ঘোষিত আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।’ এর আগে সর্বশেষ গত ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ডট বাংলা চালু হওয়ার কথা থাকলেও সাড়া মেলেনি। ফলে এখন নতুন করে এ ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

টেলিযোগাযোগ বিভাগ জানায়, ২০১০ সালে বাংলা ডোমেইন চালু করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর তা নিয়ে কারিগরি কাজ শুরু করে বিটিআরসি। পরবর্তীতে তারা ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব জমা দেয়। পরে তা পর্যালোচনা করে বিটিসিএল। দেশের নামে ডোমেইন ‘ডট বিডি’র নিয়ন্ত্রক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে বিটিসিএল। ২০১১ সালে ডট বাংলা ডোমেইন ব্যবহারের অনুমোদন পাওয়া গেলেও তত্ত্বাবধায়ক প্রতিষ্ঠান নিযুক্ত করতে না পারায় দীর্ঘ সময়েও এটি চালু করা সম্ভব হয়নি। গত বছরের জুন মাসে আবারও ডোমেইনটি কার্যকর করতে উদ্যোগ নেয় সরকার। ডোমেইনটির বর্তমান অবস্থা জানতে আইসিএএনএন’কে চিঠির জবাবো জানানো হয়, ডোমেইনটি বাংলাদেশের জন্য বরাদ্দ রয়েছে। ডট বাংলা ডোমেইনের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ সংগ্রহ, সার্ভার স্থাপন এবং অন্যান্য কারিগরি প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। ডোমেইন বিক্রির জন্য নীতিমালাও চূড়ান্ত হয়েছে বলে জানান বিটিসিএল’র এক কর্মকর্তা।

আইক্যানের তালিকায় বাংলা ভাষায় লেখা ডোমেইন হিসেবে ডটবাংলা হচ্ছে দ্বিতীয়। ডট ‘ভারত’ নামে আরেকটি বাংলায় লেখা ডোমেইন ওই তালিকায় আগেই স্থান পেয়েছে। ডটবাংলা ডোমেইন সম্পর্কে আইক্যানের সাইটে কোন তথ্য না থাকলেও ডট ভারত ডোমেইন সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য রয়েছে। এ ডোমেইনটির স্পন্সরিং অরগানাইজেশন হচ্ছে দিল্লির ন্যাশনাল ইন্টারনেট একচেঞ্জ অব ইন্ডিয়া। ভারতে হিন্দি, উর্দু, তেলেগু, গুজরাটি, পাঞ্জাবি ও তামিল ভাষায়ও ডোমেইন রয়েছে। ডট ভারত ডোমেইনটি নিবন্ধন করা হয় ২০১১ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি। বাংলাদেশ ২০১০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি আইক্যানের কাছে আবেদনের পর ২০১১ সালে ডটবাংলা ডোমেইনটির আনুষ্ঠানিক অনুমোদন এবং পরের বছর আইএএনএর অনুমোদন পায়। ভারতও ২০১০ সালে বাংলাদেশের পাশাপাশি এ ডোমেইনটির অধিকার পেতে আবেদন করে। সব দিক বিবেচনা করে আইক্যান তখন ডোমেইনটি বাংলাদেশকেই বরাদ্দ দেয়।

২০১১ সালে ডটবাংলা ডোমেইনটি নিবন্ধন পেলেও এটি চালু করার ক্ষেত্রে দেরি হওয়াতে এর অধিকার হারাতে বসেছিল বাংলাদেশ। এ ডোমেইনটি কে নিয়ন্ত্রণ করবে বিটিসিএল না বিটিআরসি, এ প্রশ্নেই কেটে যায় দীর্ঘদিন। ডোমেইনটি ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় কাজগুলো সম্পন্ন করা নিয়ে নানা প্রশ্ন ওঠার পর ২০১৫ সালের জুনে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ডমস্টিক নেটওয়ার্কিং কো-অর্ডিনেশন কমিটির (ডিএনসিসি) সভায় বিটিসিএলকে ডটবাংলার দায়িত্ব দেয়া হয়। এর আগে গত বছর ১৯ মে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে দেখা করে ডট বাংলার গুরুত্ব, অনলাইনে বাংলার অবস্থান, বাণিজ্যিক বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেছিলেন আইকানের পরিচালক (সিকিউরিটি ও সার্ভেইলেন্স) জন এল ক্রেইন ও এশিয়া প্যাসিফিক রিজিওনের পার্টনার এনগেজমেন্ট ম্যানেজার চম্পিকা বিজয়েতুঙ্গা। বাংলাদেশ নেটওয়ার্ক অপারেটরস গ্রুপের (বিডিনগ) ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান সুমন আহমেদ সাবির ওই প্রতিনিধিদলে ছিলেন।

এদিকে, বাংলাদেশের জন্য ডটবিডি ডোমেইনের জন্যও আইক্যানের কাছে আবেদন করা হয়েছিল। কিন্তু সেটাও এখনও চালু করতে পারেনি বাংলাদেশ। আইক্যানের ওয়েবসাইটে ডটবিডি ডোমেইন সম্পর্কে লেখা আছে 'পেন্ডিং ডেলিগেশন' অর্থাৎ এই ডোমেইনের প্রতিনিধিত্ব কে করবে তা আইক্যান এখনো জানে না।

প্রসঙ্গত, ২০১০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক ডোমেইন হিসেবে ‘ডটবাংলা’ কার্যকর করতে আইক্যানের কাছে আবেদন করেছিলেন। বাংলাদেশের আবেদনের পর সংস্থাটি বাংলা ভাষাকে মূল্যায়ন করে। এরপর ইন্টারনেট অ্যাসাইনড নাম্বারস অথোরিটি (আইএএনএ) ২০১১ সালের ৩০ মার্চ ইন্টারন্যাশনালাইজড ডোমেইন নেইমে (আইডিএন) লেখার ভাষা হিসেবে বাংলা ভাষার আনুষ্ঠানিক অনুমোদন দেয়। এর পর এই ডটবাংলার দায়িত্ব কে নেবে সে বিষয়ে আইডিএনের কাছে আবেদন করে তা বাস্তবায়নের প্রক্রিয়াটি অবশিষ্ট ছিল। কিন্তু ২০১৫ সালের জুন পর্যন্ত এই সিদ্ধান্তই নেয়া হয়নি। ২০১৫ সালের জুন মাসে এসে ডট বাংলা ডোমেইনে বাংলাদেশ কর্তৃত্ব হারিয়েছে বলে খবর বের হয়। এরপর সরকার নড়েচড়ে বসে। গত বছরের ২৮ জুন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ডোমেস্টিক নেটওয়ার্কিং কো-অর্ডিনেশন কমিটির (ডিএনসিসি) বৈঠকে বিটিসিএলকে এ দায়িত্ব দেওয়া হয়। এর ফলে ডট বাংলার গতি হয়। এর তত্ত্বাবধানকারীর দায়িত্ব পায় বিটিসিএল। যদিও গত ৪ বছর ধরে অভিভাবকহীন ছিল ডট বাংল‌‌‌া। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৫ সালের আগস্টে ঘোষণা দেয়া হয় ১৬ ডিসেম্বর ইন্টারন্যাশনালাইজড ডোমেইন নেইমে (আইডিএন) বাংলার(ডটবাংলা) উদ্বোধন করা হবে। পরে ১৭ নভেম্বর বিটিআরসির সঙ্গে এক বৈঠকে টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম জানান, বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন শুরুর কারণে ১৬ ডিসেম্বরের পরিবর্তে ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে এটি উদ্বোধন হবে। কিন্তু অনুমোদন না মেলায় ডোমেইনটি এখনও চালু হয়নি।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 4 - Rating 5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)