JanaBD.ComLoginSign Up

যে কারণে কখনোই সম্পর্কে ইতি টানতে নেই

লাইফ স্টাইল 28th Jun 2016 at 3:45pm 433
যে কারণে কখনোই সম্পর্কে ইতি টানতে নেই

সম্পর্কে ভাঙা-গড়ার খেলা থাকবেই। অনেক গভীর সম্পর্কও ভেঙে যেতে পারে। টিনএজারদের অভিজ্ঞতার অভাবে প্রেমের সম্পর্ক অহরহ ভেঙে যায়। আবার দীর্ঘদিনের দাম্পত্য সম্পর্কটাও টিকিয়ে রাখা সম্ভব হয় না। বিশেষজ্ঞদের মতে, যাই ঘটুক না কেন, সহজে সম্পর্ক ভেঙে দেওয়া উচিত নয়। সাধারণত দেখা যায়, বড় সমস্যাকার কারণে দম্পতি বা প্রেমিক-প্রেমিকারা সম্পর্কের ইতি টানছেন। এটা স্থায়ী বা অস্থায়ী হতে পারে। তবে যাই হোক না কেন, পরবর্তিতে আরো বেশি সমস্যার সৃষ্টি হয়। পেছনের গুরুত্বপূর্ণ কারণগুলো তুলে ধরেছেন বিশেষজ্ঞরা।

১. সম্পর্ক ভাঙনের ক্ষেত্রে সুস্পষ্ট কারণ না থাকলে তা দারুণ সমস্যার সৃষ্টি করে। এ ক্ষেত্রে দুজনই একে অপরের ত্রুটি দেখাতে থাকেণ। আন্তঃযোগাযোগে অসংখ্যা ভুল উঠে আসে। সবচেয়ে বড় বিষয় হলো, একই ঘটনার কারণে সত্যিকার যেকোনো সম্পর্কে ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়।

২. এ কাজে এগিয়ে যাওয়ার পর থেকেই পরিস্থিতর অবনতি ঘটতে থাকে। ভাঙনের আয়োজন নিয়েও অনেক সময় তা টিকে যায়। এমন হলে দ্বিতীয়বার আবারো সমস্যার সৃষ্টি হলে তা আবারো ভাঙার চিন্তা করা উচিত নয়। এতে অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যাবে।

৩. সম্পর্কে যেসব সমস্যার কারণে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, ভাঙনের পরিকল্পনার মাধ্যমে তার কোনো কিছুই দূর হবে না। কিন্তু সমস্যা মিটিয়ে নেওয়ার চিন্তা আপনাদের ভালোবাসাকে আরো দৃঢ় করবে। এর পেছনে সময় দিন।

৪. ভাঙনে যাওয়া উচিত নয়। অনেকের সম্পর্ক ভাঙার পরও আবারো তারা একে অপরের সঙ্গে জুড়ে যান। এ ক্ষেত্রে পরবর্তিতে ভাঙনের ইতিহাসটা একটা ক্ষত হয়ে থাকে। এটি সহজে সারে না।

৫. অস্থায়ীভাবে একজন অপজন থেকে দূরে দূরে থাকলেও ক্ষতি আছে। এতে সম্পর্কে ভারসাম্যহীনতা দেখা দেয়। দুজনের মানসিকতায় পরিবর্তন আসতে থাকে। ফলে পরবর্তিতে এ ঝক্কি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয় না।

৬. যে পক্ষ থেকেই এ সিদ্ধান্ত আসুক না কেন, মনে ক্ষোভ জমা হতে থাকে। এই ক্ষোভ সহজে মন থেকে চলে যায় না। ঝামেলা মিটে যাওয়ার পরও মনের এই যাতনা ফিরে আসতে পারে।

৭. আসলে এর কোনো প্রয়োজনই নেই বলেই মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। আসলে সম্পর্কে ভাঙনের বিষয়টি পুরোপুরি অপরিপক্কতার নিশানা। আপনাদের একজন বা উভয়ই অপরিণত মানুষের আচরণ দেখাচ্ছেন। কাজেই নিজের মানসিকতার বিকাশ ঘটান। সমস্যা ঠিক হয়ে যাবে।

৮. অনেকে সম্পর্কে ধরন বুঝতে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলানোর চিন্তা করেন। যেমন- কেউ ভাবলেন যে, কিছু দিন যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থেকে দেখা যাক আসলে তাকেই ভালোবাসেন কিনা। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যায়, এ বিরতির পর কেউ আর কারো কাছে ফিরে আসেন না।

৯. ক্ষণস্থায়ী ভাঙনের ক্ষোভ থেকে অন্য কারো সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়লে মানসিক পেরেশানি সৃষ্টি হয়। মনে হতে থাকে, প্রতারণা করছেন কিংবা প্রতারিত হচ্ছে। আর এ কষ্ট থেকে বেরিয়ে আসা যায় না।

১০. দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্কের ক্ষেত্রে আলোচনাই একমাত্র সমাধান হতে পারে। চটজলদি সিদ্ধান্ত এখানে না নেওয়াই ভালো। ভাঙনের কথা চিন্তাই করতে নেই। অতীতে এর চেয়ে আরো বাজে সময় নিশ্চয়ই পার করে এসেছেন।

১১. জীবনের নিজের জন্যে কিছু সময় প্রয়োজন হয়। যদি এই সময় বের করে নিতে অস্থায়ী ভাঙনের কথা চিন্তা করেন, তবে ক্ষতিটা হয়েই যাবে। নিজের সময় আপনাকে চলতি পরিস্থিতির মধ্যেই বের করে নিতে হবে। সূত্র : এমএসএন

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 6 - Rating 5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)