JanaBD.ComLoginSign Up

রূপচর্চায় তেজপাতার বিভিন্ন ব্যবহার

রূপচর্চা/বিউটি-টিপস 9th Sep 2016 at 3:40pm 325
রূপচর্চায় তেজপাতার বিভিন্ন ব্যবহার

রান্নার একটি অপরিহার্য উপাদান হল তেজপাতা। রান্নার স্বাদ এবং গন্ধ বৃদ্ধিতে এটি ব্যবহার করা হয়। রান্নার কাজ ছাড়াও শারীরিক নানা সমস্যা দূর করতেও তেজপাতা ব্যবহার করা হয়। বহুগুণী তেজপাতা রূপচর্চায়ও রয়েছে নানা ব্যবহার। জেনে নিন রূপচর্চায় তেজপাতার বিভিন্ন ব্যবহার সম্পর্কে।h



১। দাঁত সাদা করতে

তেজপাতা গুঁড়ো করে পেস্টের সাথে মিশিয়ে দাঁত মাজুন। এটি দাঁতের হলদেটে ভাব দূর করে মাড়ির যত্ন নিয়ে থাকে। আপনি চাইলে শুধু তেজপাতা গুঁড়ো দিয়েও দাঁত ব্রাশ করতে পারেন।

২। খুশকি দূর করতে

চুলের খুশকি দূর করতে তেজপাতা অনেক কার্যকরী। শুকানো তেজপাতার গুঁড়োর সাথে টকদই মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এবার এটি চুলে লাগান। কিছুক্ষণ পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। এটি খুশকি দূর করার পাশাপাশি মাথার চুলকানি দূর করে দিয়ে থাকে।

৩। উকুন দূর করতে

৫০ গ্রাম তেজপাতা গুঁড়ো করে নিয়ে ৪০০ মিলিলিটার পানিতে জ্বাল দিতে থাকুন যতোক্ষণ না ১০০ মিলিতে পৌছায়। শুকিয়ে এলে ছেঁকে পানি আলাদা করে নিন। এই পানি চুলের গোঁড়ায়, মাথার ত্বকে ভালো করে ম্যাসেজ করে নিন। ৩/৪ ঘণ্টা রেখে চুল ধুয়ে ফেলুন। এটি কয়েকবার ব্যবহার করুন। দেখবেন উকুন দূর হয়ে গেছে।

৪। ত্বক পুনরুজ্জীবিত করা

দ্রুত ত্বক পুনরুজ্জীবিত করতে তেজপাতা বেশ কার্যকর। দুই কাপ পানিতে পাঁচটি তেজপাতা অল্প আঁচে জ্বাল দিন। এরপর একটি টাওয়াল পানিতে ভিজিয়ে নিন। এটি দিয়ে ৫ মিনিট ত্বক স্টিম করুন। এটি ত্বক রিল্যাক্স করার পাশাপাশি একটি গ্লো দেবে।

৫। কন্ডিশনার হিসেবে ব্যবহার

কিছু তেজপাতা পানিতে সিদ্ধ করে নিন। এবার এটি ছেঁকে ঠাণ্ডা করে নিন। শ্যাম্পু করার পর এই পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এটি কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করবে। নিয়মিত ব্যবহারে এটি চুলকে ঝলমলে করে তুলবে।

৬। ফেইস প্যাক

আধা কাপ পানিতে এক টেবিল চামচ তেজপাতা গুঁড়ো দিয়ে দুই-তিন মিনিট জ্বাল দিন। একটি পাত্রে দুই চার টেবিল চামচ মুলতানি মাটি তেজপাতার পানির সাথে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। এই পেস্টটি ত্বকে লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি ব্রণ, ত্বক থেকে মৃত কোষ এবং ব্যাকটেরিয়া দূর করে দেয়।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 2 - Rating 5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)