JanaBD.ComLoginSign Up

চলচ্চিত্রকে বিদায় জানালেন আয়নাবাজি নির্মাতা অমিতাভ রেজা

সিনেমা জগৎ 25th Oct 2016 at 7:35pm 849
চলচ্চিত্রকে বিদায় জানালেন আয়নাবাজি নির্মাতা অমিতাভ রেজা

অমিতাভ রেজা চৌধুরী পরিচালিত ছবি ‘আয়নাবাজি’ গত ৩০ সেপ্টেম্বর ছবিটি মুক্তির পর থেকেই ভালো ব্যবসা হচ্ছে এমনটাই দাবি ছিল প্রেক্ষাগৃহের মালিকদের। ‘আয়নাবাজি’ এখন ঢাকাসহ সারাদেশের ৭৪টি প্রেক্ষাগৃহে দারুণ ব্যবসা করছে। এরইমধ্যে এটি হয়ে গেছে দেশের অন্যতম সফল চলচ্চিত্র।

ইতিমধ্যে চলচ্চিত্রটি যুক্তরাষ্ট্রের ‘সিয়াটল সাউথ এশিয়ান চলচ্চিত্র উৎসব’-এ সেরা সিনেমার পুরস্কার পেয়েছে। সোমবার ‘আয়নাবাজি’র পক্ষে এ পুরস্কার গ্রহণ করেন সিনমোর প্রযোজক জিয়াউদ্দিন আদিল।

এদিকে, পুরস্কারপ্রাপ্তির খবর পাওয়ার পরও বেশ মন খারাপ পরিচালক অমিতাভ রেজার। তার এই কষ্টের কারণ- ‘আয়নাবাজির’র পাইরেসি।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্র ইতিহাসে রেকর্ড গড়া এ সিনেমা নিয়ে চলছে ব্যাপক সমালোচনা। তবে সমালোচনা ছবির অভিনয় বা অন্য কিছু নিয়ে নয়। ব্যাপক সমালোচনা চলছে এত জনপ্রিয় সিনেমা যেটি কিনা এখনো হলে হাউসফুল হচ্ছে, সেই সিনেমা অনলাইনে রবি টিভিতে মোবাইল দর্শকদের দেখতে দেয়ার জন্য।

কেননা অনলাইনে রবি টিভিতে ছবিটি আপলোড করার পর সফটওয়্যারের মাধ্যমে তা ডাউনলোড করে ফেলে অনেকে। এরপর তা ছড়িয়ে পড়ে ইন্টারনেটে। এমন অবস্থায় একদিন পরই এ সুযোগ বন্ধ করে দেয় রবি টিভি এবং আয়নাবাজি টিম।

তবে এরই মধ্যে যা হবার তা হয়ে গেছে। এরপর অনলাইনে যেসব লিঙ্কের মাধ্যমে ছবিটি ছড়িয়ে পড়ে সেসব লিঙ্ক ডিলেট করে দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় অনেকে অভিযোগ করে বলেছেন, আয়নাবাজি টিম রবি’র থেকে টাকা নিয়ে এ কাজ করেছে। এনিয়ে আয়নাবাজি’র টিমকে নিয়ে সমালােচনা অব্যাহত রয়েছে।

এ অবস্থায় এসব অভিযোগের জবাব দিয়ে এবং ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আপাতত চলচ্চিত্র থেকে বিদায় জানিয়েছেন পরিচালক অমিতাভ রেজা। তিনি তার ফেসবুক পেজে এক দীর্ঘ পোস্টের মাধ্যমে জানিয়েছেন বিস্তারিত। তার ফেসবুক পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো….

”আজ আপনাদের সামনে খুব ভারাক্রান্ত মন নিয়ে কিছু কথা বলতে চাই। আয়নাবাজি আমার আর আমার প্রোজযোকের প্রথম সিনেমা । সুতরাং সকল ভুল ত্রুটি সীমাবদ্ধতা সহ আমি গত চার বছর অক্লান্ত পরিশ্রম করে সিনেমাটা বানিয়েছি, যার এক বিন্দু ছাড় দেই নাই কোনো কিছুতে। সিনেমা একটা collaborative art . আমি একা কিছুই করতে পারতাম না। অনেক মানুষের পরিশ্রম এখানে আছে। এই সব কিছু সম্ভব হয়েছে যখন আমার উপর ভরসা করে কেউ লগ্নি করেছে।

সিনেমা মুক্তির আগে আয়নাবাজি কেউ স্পনসর করতে এগিয়ে আসে নাই। আমার আপত্তি ছিলো কোনো নিবেদিত আয়নাবাজি হতে দিবো না। মাত্র ২০ হলে আমাদের সিনেমা নিয়েছিল, যা আয়নাবাজির লগ্নি আসার অসম্ভব কিছু। তারপর ভরসা করে আমরা মুক্তি দেই। কোনো প্রিমিয়ার শো ছাড়া সারা বাংলাদেশের মানুষের জন্য মুক্তি দেয়া হয়েছে। টিকেট সিনেমা দেখাই ছিল আমের ক্যম্পেইনের উদ্দেশ্য। আমি, চঞ্চলভাই সহ সবাই টিকেট কেটে সিনেমা দেখেছি।

আমাদের ডিজিটাল পার্টনার হলো শুধু রবি। রবি কাছে সিনেমার রাইট বেঁচার প্রশ্নই আসে না। শুধু মাত্র রবি টিভিতে অর্থাৎ মোবাইল ডিভাইস ছাড়া এটা আর কোথাও দেখা যাবে না। তাও তিনদিনের জন্য, কেউ সাবস্ক্রাইব করলে আমরা revenue share পাবো আর কিছু না। Netflix বা vod platform Er moto ETA ekta test for future vod platform. শর্ত ছিলো আমাদের full piracy protection থাকবে। যা আমাদের new filmmaker এর জন্য জরুরী। কিন্তু বাংলাদেশ এর সাইবার ক্রিমিনালরা অনেক মেধাবী। tin ta leak file matro ছড়িয়ে দিলো।

ভুল সিদ্ধান্ত অবশ্যই ছিলো আমাদের, কিন্তু গত দুই দিন যাবত ‘লোভী’, ‘প্রতারক’ বলে আমাদের মাটিতে মিশিয়ে দিচ্ছেন যখন তখন খবর পাই Seattle sound Asian film festival e আয়নাবাজি best narrative film Er award পেয়েছে। এটাই আয়নাবাজি প্রথম পুরস্কার কিন্তু আমি পুরষ্কার পেয়েছি, এ দেশের মানুষের কাছে যখন ২০ হল থেকে ৭৪টা হলে নিয়েছেন।

আমাদের ভুলের কারণে কষ্ট পেলে আমি ক্ষমাপ্রাথি। যে যত গুজব ছড়াক আমি বলছি আয়নাবাজির একমাত্র পাওয়া আপনাদের ভালবাসা আর কিছুই আমি পাবো না। সবাই ভাল থাকুন। বাংলা সিনেমা দেখুন। যদি আপনাদের আর সহযোগিতা কোনদিন পাই সেই দিন পরের সিনেমার ঘোষণা দিবো। তার আগ পর্যন্ত আমি বিদায় নিচ্ছি আপনাদের কাছ থেকে……

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 8 - Rating 5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)