JanaBD.ComLoginSign Up

বিপিএল-৪ এ ম্যান অব দ্যা টূর্নামেন্টের দৌড়ে এগিয়ে যারা

ক্রিকেট দুনিয়া 4th Dec 2016 at 1:58pm 712
বিপিএল-৪ এ ম্যান অব দ্যা টূর্নামেন্টের দৌড়ে এগিয়ে যারা

দেখতে দেখতে প্রায় শেষের দিকে চলে এসেছে বিপিএলের চতুর্থ আসর। প্লে অফের আগে আজকেই শেষ বারের মত মাঠে নামবে ৪ টি দল। বলে রাখা ভাল আগেই শেষ হয়েগেছে কুমিল্লা ও বরিশালের সম্ভাবনা। এখন প্রশ্ন কে হচ্ছেন ম্যান অব দ্যা টূর্নামেন্ট।

প্রথম ২ আসরে গাড়ী জেতেন সাকিব পরের বার জেতেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের অসার জাইদি। অার এবার? অাবারও কি দেশের বাইরের কেউ হচ্ছেন টূর্নামেন্ট সেরা? অনেক কিন্তু যদি আছে। শুরুতেই মুশফিকুর রহিমের রেসে না থাকার বিষয়টি তুলে ধরছি। তার দল প্লে অফের আগে আর সবাার নিচে থেকে বিদায় নেয়ায় তার কোন সম্ভাবনা নেই।

এবার আসছি যাদের সম্ভাবনা রয়েছে। দেখে নিন তাদের পারফরম্যান্স-

১. মোহাম্মদ নবী : এবারে বিপিএলে চিটাগং ভাইকিংসের সবচেয়ে সফল এই আফগান ক্রিকেটার। ব্যাটে বলে সমান তালে নৈপুন্য দেখিয়েছেন। বল হাতে ১৮ উইকেট আর ব্যাট হাতে ১৮৫ স্ট্রাইক রেটে ২২৫ রান। সবার থেকে এগিয়ে এই নবীই।

২. তামিম ইকবাল খান : মোহাম্মদ নবীর পরেই সবচেয়ে ভালো সম্ভাবনা থাকছে বাংলাদেশের ড্যাশিং এই ওপেনারের। ব্যাট হাতে ১২ ম্যচে ৪২৫ রান করেছেন তামি। আর অন্তত ২ টি ম্যাচে পাবেন। সেখানে আর ৭৫ রান করতে পারলেই প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে বিপিএলের এক আসরে ৫০০+ রান করে ফেলবেন তামিম। তাতে সম্ভাবনাও বাড়বে আরও।

৩. মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ : এরপরেই রয়েছেন বাংলাদেশের সাইলেন্ট কিলার হিসেবে খ্যাত মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এবারের আসরে যে কয়টি ম্যাচে খুলনা জয় পেয়েছে তাতে একটু জিরানের আগে তার পারফরম্যান্স ছিলো সবচেয়ে চমকপ্রদ। বল হাতে দারুন কিছু শেষ ওভার হিরো হয়েছিলেন। ১১ ম্যাচে ৯ উইকেট পেলেও শেষ ওভারে অবিশ্বাস্য ২ টি ম্যাচে দলকে জয় পাইয়ে দিয়েছেন তিন। আর ব্যাট হাতে করেছেন ৩১৯ রান। দলকে ফাইনালে নিতে পারলে পাবেন আরও ৩ টি ম্যাচ।

৪. শফিউল ইসলাম: এবারের বিপিএলে দারুন বল করেছেন খুলনা টাইটানসের পেসার শফিউল ইসলাম। ১১ ম্যাচে ১৭ উইকেট নিয়েছেন তিনি। ফাইনালের আগে আরও ২ টি ম্যাচ নিশ্চিত পাবেন। তাতে নবী কে সড়িয়ে লিডিং উইকেট টেকার হওয়ার সম্ভাবনাও থাকছে।

৫. মেহেদী মারুফ: টূর্নামেন্টের মাঝ অবধি সেরা রান সংগ্রাহক থাকলেও তামিম-মুশফিক-রিয়াদদের দাপটে চলে গেছেন ৫ম স্থানে। তাতে কি ঢাকাকে দারুন শুরু এনে দিতে আর ধুন্ধুমার ব্যাটিংয়ে নিজেকে সবার থেকে আলাদা হিসেবে উপস্থাপন করেছেন। ৩১৬ রান করার পথে মেহেদী মারুফের স্ট্রাইকরেট যেখানে ১৫০ ছুই ছুই সেখানে রান করার জন্যই খেলা -তামিম এর স্ট্রাইক রেট মাত্র ১১৬। এই জায়গাটিতে মারুফই এগিয়ে। সাথে সর্বাধিক ছক্কা মারার রেকর্ডটিও থাকছে। সামনের ৩ টি ম্যাচে বড় রান পেলেই হয়ে যেতে পারে মারুফের বিজয়গাথা।

৬. সাকিব আল হাসান : ম্যান অব দ্যা টূর্নামেন্টের আলোচনা হবে অথচ সেখানে সাকিবের নাম থাকবে না এমনটা হতে পারে না। হয়ত এখন পর্যন্ত বিপিএলটা ভালো কাটে নি। তাতে কি বল হাতে ৯ উইকেট আর ব্যাট হাতে ১০ ইনিংসে ১৮৫ রান একেবারে খারপও তো না। সামেন ২ টি ম্যাচে সকিবধাচের পারফম্যান্স করতে পারলে বলা তো যায় না ম্যাজিক্যাল কিছু হয়েও যেতে পারে। সেক্ষেত্রে অবশ্যই সাকিবকে অতিমানবীয় কিছু করে ধোকে হবে। যেমন ২ ম্যাচে ৭ উইকেট অবার ব্যাট হাতেও ৮০-৯০ রান। একেবারে অসম্ভব তো নয়!

সূত্রঃ বিডি টুয়েন্টিফোর টাইমস

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 4 - Rating 5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)