JanaBD.ComLoginSign Up

Internet.Org দিয়ে ফ্রিতে ব্রাউজ করুন আমাদের সাইট :) Search করুন , "জানাবিডি ডট কম" পেয়ে যাবেন ।

ঠাণ্ডা থেকে অ্যালার্জি, যে উপায়ে প্রতিরোধ সম্ভব!

সাস্থ্যকথা/হেলথ-টিপস 18th Dec 2016 at 10:37am 141
ঠাণ্ডা থেকে অ্যালার্জি, যে উপায়ে প্রতিরোধ সম্ভব!

আবহাওয়া পরিবর্তনে আমাদের অনেকেরই স্বাস্থ্যের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ে। শীতকালে কিছু উপসর্গ দেখা দেয় যেমন- কোল্ড এলার্জি বা শীত সংবেদনশীলতা। এটি হয়ে থকে কোল্ড অ্যালার্জির কারণে।

ঠাণ্ডা বাতাস, সিগারেটের ধোঁয়া, সুগন্ধি, তীব্র গন্ধ, পত্রিকা বা বই-খাতার ধুলা যাতে মাইট থাকে, ফুলের রেণু, মোল্ড ইত্যাদির উপস্থিতি অনেকেই একেবারে সহ্য করতে পারেন না। এ সবের উপস্থিতিতে শ্বাসকষ্ট, হাঁপানি বা অ্যাজমা, সর্দি ইত্যাদি দেখা দেয়।

চিকিৎসকের ভাষায়, এলারজেনজনিত উপসর্গকে এলার্জি বলা হয়। প্রচণ্ড শীতও অনেকের জন্য এলারজেন হিসেবে কাজ করে এবং এ কারণে সৃষ্ট উপসর্গকে কোল্ড এলার্জি বলা হয়।

আমাদের নাসারন্ধ্র ও শ্বাসনালিতে স্নায়ুকোষের কিছু রিসেপ্টর আছে। এই রিসেপ্টরগুলো ভ্যাগাস নার্ভ (শ্বাসনালি ও রক্তনালির মাংসপেশির সংকোচন ও প্রসারণকে এই নার্ভ উদ্দীপ্ত করে) এর সঙ্গে সংযুক্ত।

এলারজেনগুলো শ্বাসনালির রিসেপ্টর নার্ভকে উদ্দীপ্ত করে। ফলে শ্বাসনালির মাংসপেশির সংকোচন ঘটে এবং শ্বাসনালি সরু হয়ে যায়; তখন রোগীর শ্বাসকষ্ট বা হাঁপানি দেখা দেয়।

সাধারণ খুব কম বয়সী বাচ্চাদের মধ্যে এর প্রকোপ দেখা দেয়, তবে যে কোনো বয়সেই হতে পারে।

অ্যালার্জি হলে নাক দিয়ে পানি পড়ে, নাক চুলকায়, কাশি, শ্বাসকষ্ট, বাঁশির মতো আওয়াজ হয়, বুক চেপে আসা ইত্যাদি হতে পারে।

তবে এ নিয়ে চিন্তার কিছু নেই গবেষকরা ঘরোয়া কিছু উপায়ে মাত্র এক দিনেই অ্যালার্জি থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় জানিয়েছেন। তাহলে দেরি কেন? আসুন জেনে নিই কী সেই ঘরোয়া উপায় :

আপেল সিডার ভিনেগার : এক গ্লাস পানিতে এক চা চামচ আপেল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে নিন। এটি দিনে তিনবার পান করুন। এই পানীয় আপনাকে অ্যালার্জির আক্রমণ থেকে মাত্র একদিনে মুক্তি দেবে।

পেঁয়াজ পানি : পেঁয়াজে কোয়ারসিটেন নামক উপাদান রয়েছে যা অ্যালার্জি লক্ষণ দূর করে দেয়। একটি লাল পেঁয়াজ কুচি ও মধু চার কাপ পানিতে ১০ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। এই পানি দিনে দুইবার পান করুন। আপনি এই মিশ্রণটি ফ্রিজে ৪ দিন পর্যন্ত সংরক্ষণ করে পান করতে পারেন।

গ্রিণ-টি : ফুড অ্যালার্জি দূর করতে গ্রিণ-টি বেশ কার্যকর। এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিইনফ্লামেনটরি উপাদান হজমশক্তি বৃদ্ধি করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

মধু : মধু অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি ফাঙ্গাল উপাদানের জন্য সুপরিচিত। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় অ্যালার্জি জীবাণু ধ্বংস করে।

Googleplus Pint
Noyon Khan
Manager
Like - Dislike Votes 5 - Rating 4 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)