JanaBD.ComLoginSign Up

জানা হবে অনেক কিছু, চালু হয়েছে জানাবিডি (JanaBD) এন্ডয়েড এপস । বিস্তারিত জানুন..
Internet.Org দিয়ে ব্রাউজ করুন আমাদের সাইট ফ্রী , "JanaBD.Com"

চালের দাম আবার বাড়ল!

অর্থনীতি খবর 1st Apr 2017 at 7:43am 526
চালের দাম আবার বাড়ল!

খুচরা বিক্রিতে আরেক দফা বেড়েছে চালের দাম। গত সপ্তাহে দুই টাকা বাড়লেও চলতি সপ্তাহে আবারও বাড়ল কেজিতে এক টাকা। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, পাইকারি বাজারে গত সপ্তাহে যে দাম বেড়েছে সেই বাড়তি দামের চাল বাজারে আসায় খুচরা পর্যায়ে দাম সামান্য বেড়েছে। নতুন করে পাইকারি বাজারে দাম বাড়েনি। শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার, কলমিলতা বাজার ও শেওড়াপাড়া বাজারসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে এ চিত্র।

এ ছাড়া বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে গরু, মুরগির মাংস ও সয়াবিন তেল। অধিকাংশ সবজির দামই কমেছে। এ ছাড়া কমেছে খাসি ও ছাগলের মাংস, মাছ, পেঁয়াজ, আদা ও রসুনের দামও।

তবে দাম বৃদ্ধি নিয়ে কোনো কথা বলেননি ক্রেতারা। তারা বলেছেন, এসব লিখে লাভ নেই। আমরা ক্ষোভ প্রকাশ করব, আপনারা লিখবেন বা প্রচার করবেন, ব্যবসায়ীরা ঠিকই পকেট কাটবে। আর সরকারের দায়িত্বশীলরা যার যার অবস্থানে বসে বসে বেতন নেবেন। এই যখন অবস্থা তখন আর কথা বলে লাভ কী?

ঢাকার খুচরা বাজারগুলোতে মিনিকেট চাল বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি ৫৩-৫৫ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৫২-৫৪ টাকা।

নাজিরশাইল ৫৩-৫৮ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ৫২-৫৭ টাকা, পারিজাত প্রতি কেজি ৪৩ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ৪২ টাকা, গুটি স্বর্ণা ৪১ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ৪০ টাকা, ২৮ চাল ৪৭-৪৮ টাকা, আগে ছিল ৪৬-৪৭ টাকা কেজি। কারওয়ান বাজারে চাল কিনতে আসা বেসরকারি চাকরিজীবী রোকসানা আক্তার বলেন, এসব কথা লিখে আর কী হবে। যে যার অবস্থানে ঠিক থাকবে। খামোকা আমাদের ওপর ক্ষোভ ঝেড়ে লাভ কী। সবার চামড়া গণ্ডারের মতো হয়েছে। কেউ কারও কথা শুনতে পায় না। এত লেখেন কিন্তু যারা সিন্ডেকেট করে বাজারে দাম বাড়াচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আজ পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখলাম না। যা ক্ষতি হওয়ার তা আমাদেরই হয়। পকেট কাটা যাচ্ছে।

কারওয়ান বাজারের চাল বিক্রেতা আনিস বলেন, নতুন করে দাম না বাড়লেও গত সপ্তাহে পাইকারি বাজারে যে দাম বেড়েছিল তার প্রভাব পড়েছে খুচরা চালের দামে। এ সপ্তাহে কোজিতে বেড়েছে এক টাকা। তবে ১৫-১৬ দিনের মধ্যেই বাজারে নতুন চাল এলেই দাম কমতে শুরু করবে। কৃষি মার্কেটের পাইকারি চাল ব্যবসায়ীরা বলেছেন, এটা সাময়িক ব্যাপার। নতুন চাল এলেই ঠিক হয়ে যাবে। যদি দীর্ঘমেয়াদের জন্য বাড়তে থাকত সেটি চিন্তার কারণ ছিল। কয়েকদিন চালের দাম ঊর্ধ্বমুখীই থাকবে। বাড়তি দামেই বিক্রি হয়েছে গরু ও মুরগির মাংস। গরুর মাংস বিক্রি হয়েছে ৪৬০-৫০০ টাকা কেজি দরে। তবে কেজিতে ৫০ টাকা কমে খাসির মাংস ৭৫০ টাকা এবং ছাগলের মাংস ৬৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

আগের দামেই ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হয়েছে ১৫০-১৫৫ টাকা কেজি, সাদা লেয়ার ১৬০ টাকা, লাল লেয়ার ১৮০ টাকা এবং পাকিস্তানি কক মুরগি ২৫০ টাকা কেজি।

অধিকাংশ সবজির দাম কমেছে। তবে বেড়েছে আলুর দাম। প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ১৮ টাকায়, গত সপ্তাহে ছিল ১৬ টাকা। বাঁধাকপির পিস ২৫ টাকা, আগে ছিল ২২ টাকা। এ ছাড়া দাম কমে শিম বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি ৪০ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ৫৫ টাকা। ফুলকপি ৪৫ টাকা পিস, আগে ছিল ৫০ টাকা, ঢেঁড়স ৩০ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ৫০ টাকা, টমেটো ২০ টাকা, আগে ছিল ২৫ টাকা, বরবটি ৫০ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ৭০ টাকা। করলা ৫০ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ৬০ টাকা।

ধনেপাতা প্রতি কেজি ৬০ টাকা, আগে ছিল ৮০ টাকা। একই দামে বিক্রি হয়েছে বেগুন ৪০ টাকা, পেঁপে ২০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, গাজর ২০ টাকা কেজি এবং কাঁচা মরিচ প্রতি কেজি ৪০ টাকায়।

কিছুটা কমেছে পেঁয়াজের দাম। দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২৫ টাকা কেজি, গত সপ্তাহে ছিল ২৭ টাকা। আমদানি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২০ টাকায়, যা গত সপ্তাহে ছিল ২২ টাকা কেজি।

রসুনের দাম কমে বিক্রি হয়েছে আমদানি রসুন ১৬০ টাকা
কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৮০ টাকা। দেশি রসুন ১৪৫ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ১৫০ টাকা। আদা বিক্রি হয়েছে ৭০ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ৮০ টাকা।

মাছের দামও কিছুটা কমেছে। ইলিশ মাছ বিক্রি হয়েছে ৮০০ গ্রাম ওজনের প্রতি জোড়া ১৪০০ টাকায়, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৫০০ টাকা। এ ছাড়া কই মাছ বিক্রি হয়েছে ছোট ১৬০ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৮০ টাকা। পাঙ্গাশ মাছ ১০০ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ১২০ টাকা। তেলাপিয়া ৮০-১২০ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ১০০-১২০ টাকা। সিলভার কাপ (মাঝারি) ৯০-১০০ টাকা, গলদা চিংড়ি (বড়) ৭০০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল সাড়ে ৮০০ টাকা কেজি, মাঝারি চিংড়ি ৫০০ টাকা, আগে ছিল ৬০০ টাকা, ছোট চিংড়ি ৪০০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৫০০ টাকা। রূপচাঁদা বিক্রি হয়েছে (বড়) ৭৮০ টাকা কেজি, যা গত সপ্তাহে ছিল ৮৫০ টাকা। রুই-কাতলা ২২০-২৫০ টাকা এবং নলা মাছ ১২০ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ১৬০ টাকা কেজি। এ ছাড়া ডিমের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। ফার্মের মুরগির ডিম বিক্রি হচ্ছে প্রতি ডজন ৯০ টাকা দরে, হাঁসের ডিম প্রতি ডজন ১২০ টাকা এবং দেশি মুরগির ডিম ১৩০ টাকা ডজন।

জানা হবে অনেক কিছু, চালু হয়েছে জানাবিডি (JanaBD) এন্ডয়েড এপস । বিস্তারিত জানুন..

Googleplus Pint
Noyon Khan
Manager
Like - Dislike Votes 13 - Rating 4.6 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)