JanaBD.ComLoginSign Up

লিটনের পর নাঈমের সেঞ্চুরি, জিতল আবাহনী

ক্রিকেট দুনিয়া Wed at 6:47pm 120
লিটনের পর নাঈমের সেঞ্চুরি, জিতল আবাহনী

আবাহনীর লিটন দাসের সেঞ্চুরির জবাবে সেঞ্চুরি করলেন লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের নাঈম ইসলামও। তবে জয়ের হাসি হাসলেন শেষ পর্যন্ত লিটনই। রূপগঞ্জকে ৪৯ রানে হারিয়েছে আবাহনী।

ওয়ালটন ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে এই হারে সুপার সিক্সে ওঠার পথে বড় ধাক্কা খেল রূপগঞ্জ। ১০ ম্যাচে পাঁচ জয়ে তালিকায় সপ্তম স্থানে আছে তারা। আগেই সুপার সিক্স নিশ্চিত করা আবাহনী দশম ম্যাচে পেল অষ্টম জয়।

বুধবার বিকেএসপির চার নম্বর মাঠে ৩৩৪ রানের বড় লক্ষ্য তাড়ায় শুরুতেই ধাক্কা খায় রূপগঞ্জ। ২২ রানের মধ্যেই ফিরে যান দুই ওপেনার জয়রাজ শেখ (১) ও হাসানুজ্জামান (১৩)। দলের ৪৬ রানে ফিরে যান তিনে নামা ইয়াসির আলীও (১৩)।

পাঁচে নামা রাজা আলী দারও টেকেননি বেশিক্ষণ। দলের ৭৪ রানে তিনি ফেরেন ব্যক্তিগত ৬ রানে। তবে পঞ্চম উইকেটে মোশাররফ হোসেনকে নিয়ে ১০১ রানের বড় জুটি গড়েন অধিনায়ক নাঈম। দুজনই তুলে নেন ফিফটি।

মোশাররফ ৬৭ করে ফিরলেও নাঈম সেঞ্চুরির দিকেই এগোতে থাকেন। রূপগঞ্জের আস্কিং রানরেট অবশ্য বাড়তেই থাকে। ষষ্ট উইকেটে হামিদুল হকের সঙ্গে ঠিক ১০০ রানের জুটি গড়ার পথে সেঞ্চুরি তুলে নেন নাঈম। কিন্তু তার সেঞ্চুরি রূপগঞ্জের জয়ের জন্য যথেষ্ট হয়নি। ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ২৮৪ রানে থামে রূপগঞ্জের ইনিংস।

শেষ ওভারে আউট হওয়ার আগে ১১৯ বলে ১১ চার ও ৩ ছক্কায় ১২৩ রান করেন নাঈম। হামিদুল ৪১ বলে ৩ চারে ৩৭ রানে অপরাজিত ছিলেন। ৪৪ রানে ৩ উইকেট নিয়ে আবাহনীর সেরা বোলার আবু জায়েদ রাহি।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমেছিল আবাহনী। টুর্নামেন্টের বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের দুর্দান্ত সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার লিটন দাস ও সাদমান ইসলাম।

৭৮ বলে ঝোড়ো সেঞ্চুরি তুলে নেন লিটন। তিন ম্যাচে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি পেলেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। লিটন-সাদমান মিলে ২৮.১ ওভারে গড়েন ২০৭ রানের বিশাল উদ্বোধনী জুটি। সাদমান ৮৩ বলে ৭ চার ও ৫ ছক্কায় ৮৫ করে ফিরলে ভাঙে এ জুটি।

সাদমানের বিদায়ের কিছুক্ষণ পরেই ফেরেন লিটন। তার আগে ১০১ বলে ২০ চার ও ৩ ছক্কায় ১৩৬ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন ২২ বছর বয়সি এই ব্যাটসম্যান।

পরের ব্যাটসম্যানরা অবশ্য ভালো করতে পারেননি। শেষ ওভারে মোশাররফের ৪ বলে ৪ উইকেট হারিয়ে এক বল বাকি থাকতে আবাহনী অলআউট হয় ৩৩৩ রানে।

আবাহনীর ৪ বলে ৪ উইকেট পড়লেও হ্যাটট্রিক হয়নি মোশাররফের। তার প্রথম বলে শুভাগত হোম বোল্ড হওয়ার পর দ্বিতীয় বলে এলবিডব্লিউ হন কাজী আশিক। পরের বলে রানআউটে কাটা পড়েন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। চতুর্থ বলে মাহমুদুল হাসানকে ক্যাচ দেন সাকলাইন সজীব।

রূপগঞ্জের পক্ষে মোশাররফ ও মোহাম্মদ শরীফ ৩টি করে উইকেট নেন। মাহমুদুল হাসানের ঝুলিতে জমা পড়ে ২ উইকেট। পরে বড় লক্ষ্য তাড়ায় পেরে ওঠেনি রূপগঞ্জের ব্যাটসম্যানরা।

তথ্যসূত্রঃ রাইজিংবিডি

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 4 - Rating 5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)