JanaBD.ComLoginSign Up

Internet.Org দিয়ে ব্রাউজ করুন আমাদের সাইট ফ্রী , "জানাবিডি ডট কম"

আইপিএলের পাওনা টাকা দিয়ে কি করবেন, জানালেন মুস্তাফিজ

ক্রিকেট দুনিয়া 17th Apr 2016 at 9:06am 584
আইপিএলের পাওনা টাকা দিয়ে কি করবেন, জানালেন মুস্তাফিজ

আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দারাবাদের হয়ে খেলতে বর্তমানে ভারতে রয়েছেন বাংলাদেশের বাঁ হাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। আইপিএলের প্রথম ম্যাচে চার ওভার বল করে দিয়েছেন মাত্র ২৬ রান। নিয়েছেন ডি ভিলিয়ার্স এবং শেন ওয়াটসনের উইকেট। স্বভাবতই বেশ উচ্ছ্বসিত মুস্তাফিজ। দ্বিতীয় ম্যাচে কলকাতার বিপক্ষে নামার আগে ভারতের অনলাইন পত্রিকা ‘মিড ডে’–তে একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন।

ওই সাক্ষাৎকারের কিছু অংশগুলো পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো -

→ অভিষেকে টানা দুই ওয়ানডেতে পাঁচ উইকেট…[/b]

মুস্তাফিজ: সেটা ছিল আমার গর্ব করার মতো মুহূর্ত। তবে আমি অতীতের কোনোকিছু নিয়ে চিন্তা করায় বিশ্বাসী নই। ওই দুই ম্যাচের উইকেট অবশ্যই আমাকে দলে টিকে থাকতে সাহায্য করে। তবে আমার সবচেয়ে বড় পাওয়া ছিল সতীর্থ ও ম্যানেজমেন্টের কাছ থেকে সম্মান ও ভালোবাসা পাওয়া। আর এখানে (হায়দরাবাদ) আমাদের বোলিং ইউনিটের সদস্যরা একে অন্যের দুর্বলতা ও শক্তিশালী দিকগুলো জানি। এতে একসঙ্গে কাজ করে দুর্বলতাগুলো কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছি।

→ প্রথম প্রাইজ মানি…

মুস্তাফিজ: আমার প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচের পর যে প্রাইজ মানি পেয়েছিলাম ওটা দিয়ে পরিবারের সদস্য ও কাছের বন্ধুদের নিয়ে একটা ছোটখাটো খাবারের আয়োজন করেছিলাম। এবারের আইপিএল খেলে দেশে ফিরে আগে গ্রামের বাড়ি যাবো। নিজের জন্য একটা মোটর সাইকেল আর পরিবারের জন্য একটা প্রাইভেট কার কিনতে চাই।

→ নিজের বোলিং দক্ষতা, বিশেষকরে কাটার…

মুস্তাফিজ: নির্দিষ্ট কেউ আমাকে এটা শেখাননি। তবে ছোটবেলা থেকে বিভিন্ন কোচ আমার বোলিং ভাল করতে অবদান রেখেছেন। এছাড়া দ্বিতীয় বিভাগে কোচদের কাছ থেকে ভাল পরামর্শ পাওয়ার পর এখন জাতীয় দলে থেকে পাচ্ছি। এমন কি সানরাইজার্সে এসেও তো অনেক উপকার পাচ্ছি। ট্রেন্ট বোল্ট ও আশিষ নেহরাদের মতো বোলারদের সঙ্গে এখানে অনুশীলন করছি। তারা সবাই খুবই খোলা মনের মানুষ। ভাষা বুঝি না কিন্তু তারপরও তারা আমাকে অনেককিছু শেখাতে আগ্রহী। আইপিএলের প্রথম আসর থেকে সত্যিই আমি অনেক কিছু শিখছি।

→ বল করার সময় কব্জির পজিশন। যা নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে…

মুস্তাফিজ: এটা প্রাকৃতিকভাবেই আমি পেয়েছি। তবে অবশ্যই অনেকে কব্জির পজিশন নিয়ে আমাকে পরামর্শ দিয়েছেন। কব্জির পজিশন প্রায় একই রকম রেখে বিভিন্নভাবে বল করায় আমার সব কোচই আমার ওপর সব সময় খুশি।

→ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষের শেষ ওভার…

মুস্তাফিজ: আসলে তখন খুবই এলোমেলো অবস্থা ছিল। তবে আমরা আমাদের কাজের ওপর মনযোগী ছিলাম। পরিবেশটা ছিল খুবই উত্তেজনাকর। স্টেডিয়াম তখন কাঁপছিল। এমন মুহূর্তে মনযোগ ঠিক রাখা সহজ নয়। তবে আমরা ছিলাম খুবই কঠিন অবস্থায়।

→ ওই হারের পর বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দের অবস্থা…

মুস্তাফিজ: ওই ম্যাচে সবাই জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে ছিল। বিশেষকরে টুর্নামেন্টে টিকে থাকার জন্য ম্যাচটি জেতা ছিল আবশ্যক। জয়ের কাছে গিয়েও হেরে যাওয়া স্বভাবতই সবার ভেঙে পড়ার কথা। তবে আমরা সবাই ছিলাম ইতিবাচক। একসঙ্গে কয়েকজন খেলোয়াড় দাঁড়িয়ে ম্যাচটি থেকে ইতিবাচক দিক খুঁজছিলাম। আমরা আরও ভাল করতে পারতাম বলে একে অপরকে বলছিলাম। আমরা আরও শক্তিশালী হয়ে ফিরবো বলে তখন সবাই প্রতিজ্ঞা করি।""

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 4 - Rating 5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)