JanaBD.ComLoginSign Up

Internet.Org দিয়ে ব্রাউজ করুন আমাদের সাইট ফ্রী , "জানাবিডি ডট কম"

যাদের কেউ পাত্তা দেয়নি তারাই ফাইনালে

ক্রিকেট দুনিয়া 16th Jun 2017 at 10:33am 296
যাদের কেউ পাত্তা দেয়নি তারাই ফাইনালে

এবারের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে পাকিস্তান এসেছিল আন্ডারডগের তকমা নিয়ে। আট দলের প্রতিযোগিতায় র‌্যাংকিংয়ে সবার নিচে থাকা দলটিকে কেউ গোনায় ধরেনি। কিন্তু সবাইকে চমকে দিয়ে সেই পাকিস্তানই উঠে গেছে ফাইনালে। সেমিফাইনালে হট ফেভারিট ইংল্যান্ডকে আট উইকেটে হারিয়ে সবাইকে সব সমালোচনা গিলতে বাধ্য করেছে পাকিস্তান। এটাই যেন বেশি তৃপ্তি দিচ্ছে পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদকে।

প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে অসহায় আত্মসমর্পণের পর বিদ্রুপ আর সমালোচনার চাবুকে রক্তাক্ত হতে হয়েছে তাদের। প্রায় নতুন চেহারার এ অনভিজ্ঞ দলটির ওপর আস্থা ছিল না খোদ পাকিস্তানের মানুষেরই। কিন্তু সরফরাজের বিশ্বাস ছিল। পাশার দান উল্টে দিতে পারে তার দল। বিদ্রুপের শিকার হওয়ার ভয়ে এতদিন বড় গলায় সেটা বলার সাহস পাননি।

সেমির মঞ্চে টুর্নামেন্টে নিজেদের সেরা পারফরম্যান্স দেখিয়ে ইংল্যান্ডকে ছিটকে দেয়ার পর মোক্ষম জবাবটা দিলেন সরফরাজ, ‘ফাইনালে ওঠাটা আমার ও গোটা পাকিস্তানের জন্য দারুণ গর্বের এক উপলক্ষ। খুশিতে মনটা ভরে গেছে। এটা সেই দল, যাদের কেউ গোনায় ধরেনি। না এখানে, না দেশে। আমাদের সামান্য সুযোগও দেখেনি কেউ। কেউ ভাবেনি যে, আমরা ফাইনালে যেতে পারি। কিন্তু আমার সেই বিশ্বাস ছিল। এখন আমরা ফাইনালে। প্রতিপক্ষ যেই হোক, আশা করি আমরাই জিতব।’

মুখে যাই বলুন না কেন, সরফরাজ নিজেও হয়তো দলের পারফরম্যান্সে চমকে গেছেন। ভারতের কাছে অমন হারের পর গ্রুপের শেষ দুটি ম্যাচই কার্যত নকআউটের চাপ নিয়ে খেলতে হয়েছে তাদের। সেই থেকেই আগুন ঝরাচ্ছেন পাকিস্তানের বোলাররা। বিশেষ করে পেসাররা। চার ম্যাচে ১০ উইকেট নেয়া হাসান আলী তো টুর্নামেন্টেরই সেরা বোলার। দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলংকা ও ইংল্যান্ড- টানা তিন ম্যাচে তিনটি করে উইকেট নিয়েছেন হাসান। সেমিফাইনালে দলের সেরা বোলার মোহাম্মদ আমিরের অনুপস্থিতিতি বুঝতেই দেননি অভিষিক্ত রুম্মান রইস। জুনায়েদ খানও আছেন দারুণ ফর্মে। ব্যাট হাতে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছেন আরেক নবাগত ফখর জামান।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পাকিস্তানের ঝলমলে ব্যাটিং ও উজ্জীবিত ফিল্ডিং যেন দিনবদলের বার্তা দিয়ে রাখল। এর পেছনে কোচ মিকি আর্থার ও টিম ম্যানেজমেন্টের বড় অবদান দেখছেন সরফরাজ, ‘ভারতের কাছে হারের পর আমরা ভেঙে পড়েছিলাম। সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য কৃতিত্ব দিতে হবে টিম ম্যানেজমেন্টকে। তারা খুব ভালোভাবে উজ্জীবিত করেছে আমাদের। এরপর থেকেই আমরা দারুণ বোলিং ও ফিল্ডিং করছি। সেমিফাইনালে ব্যাটিংও দারুণ হল। এখন আমরা সেরা ছন্দে আছি।’

ফাইনালের আগে একদিন বাড়তি বিশ্রাম আরও সহায়ক হয়েছে পাকিস্তানের জন্য। ফিল্ডিংয়ের সময় হালকা চোট পাওয়া হাসান আলী ও ইমাদ ওয়াসিম ফাইনালের আগেই পুরো ফিট হয়ে উঠতে পারবেন। পিঠে চোট পাওয়া আমিরকেও ফাইনালে পাওয়ার আশা করছেন সরফরাজ।

তথ্যসূত্রঃ এএফপি

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 3 - Rating 3.3 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)