JanaBD.ComLoginSign Up

জানা হবে অনেক কিছু, চালু হয়েছে জানাবিডি (JanaBD) এন্ডয়েড এপস । বিস্তারিত জানুন..
Internet.Org দিয়ে ব্রাউজ করুন আমাদের সাইট ফ্রী , "JanaBD.Com"

মৃত্যুর আগে শেষ ইচ্ছায় শচীনকে দেখতে চেয়েছিলেন এই মহিলা ভক্ত

খেলাধুলার বিবিধ 23rd Jul 2017 at 8:16am 296
মৃত্যুর আগে শেষ ইচ্ছায় শচীনকে দেখতে চেয়েছিলেন এই মহিলা ভক্ত

বাকি দুনিয়ার কাছে যা নেই সেই শচীন টেণ্ডুলকার আছে ভারতের কাছে। এই গর্বে আজও গর্বিত দেশবাসী। ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছেন আগেই। কিন্তু সেই মাস্টার ব্লাস্টারের প্রতি ফ্যানদের ভক্তি, শ্রদ্ধা, ভালবাসা যে এতটুকু কমেনি, ফের তারই প্রমাণ মিলল। মৃত্যুর আগে শেষ ইচ্ছায় শচীনকে দেখতে চেয়েছিলেন এক মহিলা ভক্ত।

মারণ রোগ ক্যানসারে ভুগছিলেন কেরলের এক মহিলা। নিশ্চিত মৃত্যু জেনে স্বামীকে নিজের শেষ ইচ্ছার কথা জানিয়েছিলেন। ইহলোক থেকে চিরজীবনের মতো বিদায় নেওয়ার আগে একবার ক্রিকেট ঈশ্বরকে চোখের দেখা দেখতে চান।

গত মঙ্গলবার ফেসবুকে সেই অভিজ্ঞতার কথাই জানালেন এন রমেশ কুমার। পালাক্কাড় জেলার বাসিন্দা জানাচ্ছেন, সেই সময় ক্যানসারের সঙ্গে বাঁচার যুদ্ধ চালাচ্ছিলেন তার স্ত্রী আশু।

চলছিল কেমোথেরাপি। সেই যন্ত্রণার মধ্যেই স্বামীকে জানিয়েছিলেন, শচীন টেণ্ডুলকারকে একবার সামনে থেকে দেখতে চান।

ঘটনা গত বছর ৬ অক্টোবরের। খবরের কাগজে আশু পড়েছিলেন, ইন্ডিয়ান সুপার লিগে কেরল ব্লাস্টার্সের কর্ণধার হিসেবে কোচি আসছেন শচীন। তখনই রমেশকে জানান, তাকে যেন স্টেডিয়ামে নিয়ে যাওয়া হয়। শচীনকে দেখলেই মন ভাল হয়ে তার। বলেছিলেন, মৃত্যুকে ভয় পাই না। কিন্তু একবার শচীনকে দেখতে চাই। আমায় নিয়ে চল।

যন্ত্রণাকাতর স্ত্রীর অনুরোধ ফেলতে পারেননি রমেশ। কোনওরকমে ম্যাচের টিকিট জোগাড় করে পৌঁছে যান কালুর স্টেডিয়ামে। কিন্তু ক্যানসারের রোগীকে সেই ভিড়ের মধ্যে নিয়ে যাওয়া তো সহজ ছিল না। পুলিশও তাদের সাহায্য করে।

স্টেডিয়ামের বাইরে রাখা ছিল অ্যাম্বুল্যান্সও। স্টেডিয়ামে পৌঁছতেই স্বপ্নপূরণ হল আশু। যাকে এত বছর ধরে বাইশ গজে দাপটের সঙ্গে ব্যাটিং করতে দেখেছেন, তিনিই দাঁড়িয়েছিলেন চোখের সামনে। আশুর চোখ দিয়ে ঝরে পড়ছে আনন্দাশ্রু।

জানতেন, এই শেষবার। আর কখনও শচীনকে দেখতে পাবেন না। তার গলা শুনতে পাবেন না। কারণ সব ছেড়ে জীবন থেকেই ছুটি হয়ে যাবে তার।

তাই শচীনের উপস্থিতির প্রতিটি মুহূর্তকে মনের মধ্যে আগলে রাখছিলেন আশু। না, শচীন সে মুহূর্তে ভিড়ে বসে থাকা ভক্তের মনের খবর জানতেও পারেননি। কিন্তু অজান্তেই আশুকে জীবনের অনেকটা খুশি উপহার দিলেন মাস্টার ব্লাস্টার।

রমেশ বলছেন, এই পোস্টটি কোনও সহানুভূতি আদায়ের জন্য করেননি। এ বার্তা ক্যানসার রোগীদের জন্য। মৃত্যুর কাছে যেন তারা আগে থেকে হার না মেনে নেন। জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত আনন্দে থাকার দৃষ্টান্ত তৈরি করে দিয়ে গিয়েছেন তার প্রয়াত স্ত্রী। মানুষের কাছে সেই উদাহরণই তুলে ধরলেন রমেশ।

জানা হবে অনেক কিছু, চালু হয়েছে জানাবিডি (JanaBD) এন্ডয়েড এপস । বিস্তারিত জানুন..

Googleplus Pint
Noyon Khan
Manager
Like - Dislike Votes 0 - Rating 0 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)