JanaBD.ComLoginSign Up

জানা হবে অনেক কিছু, চালু হয়েছে জানাবিডি (JanaBD) এন্ডয়েড এপস । বিস্তারিত জানুন..
Internet.Org দিয়ে ব্রাউজ করুন আমাদের সাইট ফ্রী , "JanaBD.Com"

নবজাতকের কানে আজান দেবেন কীভাবে?

ইসলামিক শিক্ষা 24th Jul 2017 at 2:33pm 420
নবজাতকের কানে আজান দেবেন কীভাবে?

নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলামবিষয়ক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠান ‘আপনার জিজ্ঞাসা’।

জয়নুল আবেদীন আজাদের উপস্থাপনায় এনটিভির জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানে দ‍র্শকের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিশিষ্ট আলেম আবু বকর মো. জাকারিয়া।

আপনার জিজ্ঞাসার ১৯৮০তম পর্বে নবজাতকের কানে আজান কীভাবে দিতে হবে, সে সম্পর্কে চুয়াডাঙ্গার পলাশপাড়া থেকে চিঠিতে জানতে চেয়েছেন সাজেদা খাতুন। অনুলিখনে ছিলেন জহুরা সুলতানা।

প্রশ্ন : সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর ডান কানে আজান ও বাঁ কানে ইকামত দিতে হবে। আজান ও ইকামতের শব্দগুলো কি জোরে বলতে হবে, নাকি আস্তে কানের কাছে গিয়ে বলতে হবে?

উত্তর : ডান কানে আজান ও বাঁ কানে ইকামতের হাদিসটার দুর্বলতা আছে। তবে আজানটা সহিহ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত হয়েছে। এ জন্য আজান দিলেই যথেষ্ট। তবে আজানটা জোরে নয়, যেন বাচ্চার কান ফেটে যায়, বাচ্চা ভয় পায়, কান্নাকাটি আরম্ভ করে, এমনভাবে নয়।

আসলে এর উদ্দেশ্যটা আমাদের জানতে হবে। আজানের উদ্দেশ্য হচ্ছে, এই বাচ্চা দুনিয়াতে এসেছে, সে যেন ইসলামের ওপর থাকে, ফেতরাতের ওপর থাকে। এ জন্য প্রথম ধ্বনি তার কানে যেন যায়, আল্লাহু আকবার, আল্লাহ সবচেয়ে বড় এবং সর্বশেষ লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ, এটাও যেন তার কানে যায়।

আল্লাহর শাহাদাত, তাওহিদের সাক্ষ্য, রাসুলের রিসালাতের সাক্ষ্য, সালাতের সাক্ষ্য, কল্যাণের সাক্ষ্য—এগুলো সবই যেন আপনার সন্তানের ওপর আসর করে, তার ওপর যেন প্রভাব পড়ে, এটাই শরিয়ত চায়। এটা যদি আপনি আদায় করতে পারেন। আস্তে আস্তে বলুন কানের কাছে, যেন আজানের শব্দগুলো যায়, জোরে নয়। অনেক বাড়িতে আজান দিয়ে বসে। এটা আবার ভুল কাজ। বাড়িতে আজান দেওয়াটা ঠিক নয়। বাচ্চাকে কোলে নিয়ে আস্তে আস্তে তার কানের কাছে আজানটা বলুন। পুরুষ-নারী যে কেউ আজান দিতে পারবেন।

কারো জন্য নিষেধ নেই। তবে উত্তম হচ্ছে পুরুষ বলা, আজান যেহেতু পুরুষের কাজ।

এখানে উদ্দেশ্য হচ্ছে বাচ্চাকে শোনানো, নামাজের জন্য ডাকা বা আহ্বান করা নয়। বাচ্চাকে এটা শোনানোর অর্থ হচ্ছে বাচ্চা যেন তাওহিদবাদী হয়, রাসুল (সা.)-এর রিসালাতকে যেন স্বীকার করে, দ্বীনের ওপর যেন থাকে, নামাজ আদায়কারী হয়, এটাই মূল উদ্দেশ্য। রাসুল (সা.) কী উদ্দেশ্যে কোন কাজটা করেছেন, সেটা জানলে আমাদের জন্য আমল করা সহজ হবে। সুতরাং বাচ্চাকে কোলে নিয়ে ধীরে ধীরে বলবেন, খুব জোরে নয়। কারণ, এটা করতে গিয়ে বাচ্চার ওপর যেন উল্টো প্রভাব না পড়ে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

আর ইকামত নয়, শুধু আজানই দেবেন। তবে ডান বা বাঁ কান নির্দিষ্ট নয়। আপনি কোলে নিয়ে আস্তে আস্তে বলবেন, বাচ্চা শুনবে। এখানে কান কোনো লক্ষ্য নয়।

সূত্রঃ এনটিভি

জানা হবে অনেক কিছু, চালু হয়েছে জানাবিডি (JanaBD) এন্ডয়েড এপস । বিস্তারিত জানুন..

Googleplus Pint
Noyon Khan
Manager
Like - Dislike Votes 0 - Rating 0 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)