JanaBD.ComLoginSign Up

জানা হবে অনেক কিছু, চালু হয়েছে জানাবিডি (JanaBD) এন্ডয়েড এপস । বিস্তারিত জানুন..
Internet.Org দিয়ে ব্রাউজ করুন আমাদের সাইট ফ্রী , "JanaBD.Com"

নতুন করে আইপিএলে যোগ দিচ্ছে এই দল

ক্রিকেট দুনিয়া 7th Aug 2017 at 10:30am 1,310
নতুন করে আইপিএলে যোগ দিচ্ছে এই দল

স্পট ফিক্সিং কাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে দু’বছর নির্বাসিত হতে হয়েছিল চেন্নাই সুপার কিংস ও রাজস্থান রয়্যালসকে। দুই বছর পরে আগামী আইপিএল থেকেই ফিরছে দুই দল। তবে দুই দলের প্রত্যাবর্তনের পাশাপাশি এবার নতুন করে ফেরার রাস্তা তৈরি হল কোচি টাস্কার্স ফ্র্যাঞ্চাইজির। ২০১০ সালে আইপিএল দুনিয়ায় আবির্ভাবের পরে কেবলমাত্র একটাই মরশুম খেলতে দেখা গিয়েছিল অধুনালুপ্ত কোচি ফ্র্যাঞ্চাইজিকে।

দলের অংশীদারদের অভ্যন্তরীণ ঝামেলায় ফ্র্যাঞ্চাইজির ফি-র দশ শতাংশ ব্যাঙ্ক গ্যারান্টি হিসেবে জমা রাখতে পারেনি কোচি। তার পর থেকেই বিসিসিআইয়ের তরফে ‘ফ্রিজ’ করে দেয়া হয় কোচিকে। তবে সম্প্রতি দুই ব্যক্তি কেরল হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেন বিসিসিআই-এর বিরুদ্ধে। তাঁদের বক্তব্য, বোর্ড অনৈতিকভাবে চুক্তি ছিন্ন করেছে কোচি-র সঙ্গে।

২০১১ সালেই আইপিএল-এ কালো তালিকাভুক্ত হয়ে পড়েছিল কোচি টাস্কার্স ফ্র্যাঞ্চাইজি। আইপিএল-এর চুক্তিভঙ্গের অভিযোগ উঠেছিল এই ফ্র্যাঞ্চাইজির বিরুদ্ধে। পাঁচটি পৃথক কোম্পানি একসঙ্গে রেন্ডেভাস স্পোর্টস ওয়ার্ল্ড নামে এক কোম্পানির ছাতার তলায় এসে আইপিএল-এ কোচি টাস্কার্স হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিল।

নিয়মভঙ্গের পরে ছয় মাসের ডেডলাইন দিয়ে কোচি-কে বলা হয়েছিল নতুনভাবে ব্যাঙ্ক গ্যারান্টি জমা দিতে। নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে তা করতে ব্যর্থ হওয়ার পরে আইপিএল থেকে বহিষ্কার করা হয় কোচিকে। পাশাপাশি আগের ১৫৬ কোটি টাকা ব্যাঙ্ক গ্যারান্টিও বোর্ড নিয়ে নিয়েছিল।

এর পরেই বোর্ডের বিরুদ্ধে আইনি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে কোচি। টানা চার বছর আইনি লড়াই চালানোর পর ২০১৫ সালে আদালতের তরফেও সদর্থক রায় পেয়েছিলেন কোচি-র মালিকরা। তৎকালীন সুপ্রিমকোর্টের প্রধান বিচারপতি আর সি লাহোটি বোর্ডকে নির্দেশ দিয়েছিলেন, কোচি ফ্র্যাঞ্চাইজিকে ৫৫০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার জন্য। পাশাপাশি আদালতের তরফে এমনও বলা হয়েছিল যে, যদি বোর্ড নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ক্ষতিপূরণ দিতে না পারে, তাহলে প্রত্যেক বছরে জরিমানা বাবদ অতিরিক্ত ১৮ শতাংশ টাকা দিতে হবে। বোর্ড এমন রায়কে চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে আবেদন করে।

তবে যত দিন গড়িয়েছে, ততই আইনি যুদ্ধে পিছু হটেছে বোর্ড। একটি সর্বভারতীয় দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোচি বনাম বোর্ড যুদ্ধে প্রায় হারের মুখে বিসিসিআই। এমন অবস্থায় কোচিকে ১০৮০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হতে পারে। প্রতিকূল পরিস্থিতিতেই তাই বোর্ড সম্পূর্ণ অন্য পন্থা নিতে চলেছে। সেই রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, কয়েক মাস আগে বোর্ডের বিশেষ সাধারণ সভায় বোর্ডের সচিব অমিতাভ চৌধুরী বিসিসিআইয়ের অন্যান্য আধিকারিকদের এই বিষয়ে অবগত করেন। তিনিই বোর্ডের বাকি সদস্যদের আদালতের বাইরে এই আইনি লড়াইয়ের মীমাংসা করার প্রস্তাব দেন। যা বোর্ডের অনেকেরই মনঃপূত হয়েছে।

এরই মধ্যে গত শুক্রবার ৪ অগস্ট কেরল হাইকোর্ট একজন আবেদনকারীকে পরামর্শ দিয়েছে, লোধা কমিটির কাছে পরের পদক্ষেপের ব্যাপারে বিস্তারিত জানাতে। অর্থাৎ আইনি লড়াইয়ে আপাতত অ্যাডভান্টেজ কোচি-ই!

প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও অবশ্য কোচি কর্তাদের চাপের কাছে নতি স্বীকার করতে চাইছেন না বোর্ড আধিকারিকরা। দেখা যাক, কোচি আইপিএল-এর মূল টুর্নামেন্টে খেলার বিষয়ে শেষ পর্যন্ত সবুজ সঙ্কেত আদায় করে নিতে পারে কী না!

তথ্যসূত্রঃ অনলাইন

জানা হবে অনেক কিছু, চালু হয়েছে জানাবিডি (JanaBD) এন্ডয়েড এপস । বিস্তারিত জানুন..

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 0 - Rating 0 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)