JanaBD.ComLoginSign Up
জানা হবে অনেক কিছু, চালু হয়েছে জানাবিডি (JanaBD) এন্ডয়েড এপস । বিস্তারিত জানুন..
Internet.Org দিয়ে ব্রাউজ করুন আমাদের সাইট ফ্রী , "JanaBD.Com"

যে ছয়টি কারণে উত্তেজনা ছড়াচ্ছে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ

ক্রিকেট দুনিয়া 7th Aug 2017 at 7:03pm 1,155
যে ছয়টি কারণে উত্তেজনা ছড়াচ্ছে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ

শঙ্কার মেঘ কেটে গেছে, বাংলাদেশ সফরে আসছে অস্ট্রেলিয়া। স্টিভেন স্মিথরা ঢাকায় পা রাখার আগেই অবশ্য উত্তেজনা ছড়াচ্ছে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজটি। প্রথমত, ২০০৬ সালের পর প্রথমবার টেস্ট সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে আসছে অস্ট্রেলিয়া। দ্বিতীয়ত, এই সফর নিয়ে মঞ্চায়িত হয়েছে একের পর এক নাটক। সব মিলিয়ে ক্রিকেট বিশ্বের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা সিরিজটি আরও অনেক কারণে ছড়াচ্ছে উত্তেজনা। সেখান থেকে উল্লেখযোগ্য ছয়টি কারণ তুলে ধরা হলো-

▶১১ বছর পর অস্ট্রেলিয়ার প্রথম টেস্ট সফর:

২০০৬ সালে শেষবার বাংলাদেশের মাটিতে টেস্ট সিরিজ খেলেছিল অস্ট্রেলিয়া। রিকি পন্টিংয়ে অধীনে ১১ বছর আগের সিরিজটি ২-০ ব্যবধানে জিতেছিল সফরকারীরা। দুই ম্যাচের ওই টেস্ট সিরিজটি স্মরণীয় হয়ে আছে জ্যাসন গিলেস্পির ডাবল সেঞ্চুরির কারণে। নাইটওয়াচম্যান হিসেবে নেমে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন সাবেক এই পেসার। ওই সিরিজের পর ২০১৫ সালের অক্টোবরে বাংলাদেশে আসার সূচি ঠিক হয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার। কিন্তু নিরাপত্তা কারণে শেষ মুহূর্তে বাতিল হয়ে যায় সিরিজটি। দীর্ঘ অপেক্ষা শেষে ১৮ আগস্ট দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে আবার বাংলাদেশে পা রাখবে অস্ট্রেলিয়া দল। এবার অবশ্য তাদের জন্য অপেক্ষা করছে কঠিন পরীক্ষাই। ২০০৬ সালের ওই বাংলাদেশ এখন অন্যরকম, গত কয়েক বছরে করেছে ব্যাপক উন্নতি।

▶বদলে যাওয়া বাংলাদেশ:

টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে হয়তো বাংলাদেশ এখন নবম স্থানে, তবে ঘরের মাঠে তাদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স যে কোনও দলকে ফেলে দেবে চিন্তায়। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেও ব্যতিক্রম হচ্ছে না। গত ১২ মাসের টেস্টের পরিসংখ্যান বলছে, এই সময়ে বাংলাদেশ তাদের প্রথম টেস্ট জয় পেয়েছে ইংল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। সঙ্গে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনালের কথা টানলে টাইগাররা এখন বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী এক। তাই অস্ট্রেলিয়াও যে কঠিন পরীক্ষার সামনে পড়তে যাচ্ছে, সেটা বলাই যায়। ইংল্যান্ডের মতো দলকেও তো কোনও রকমে টেস্ট সিরিজ ড্র করে ফিরতে হয়েছিল গত বছরের অক্টোবরে। বাংলাদেশ প্রথম টেস্ট মাত্র ২২ রানে হারের পর দ্বিতীয় টেস্টে পায় ১০৮ রানের জয়। সেই হিসাবে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজও কঠিন উত্তেজনা ছড়াবে বলে মনে করছে ক্রিকেট বিশ্ব।

▶অ্যাশেজের আগে চূড়ান্ত পরীক্ষার মঞ্চ:

অস্ট্রেলিয়ার কাছে অ্যাশেজ হলো শেষ কথা। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই সিরিজটি হলো তাদের সবচেয়ে মর্যাদার লড়াই। উত্তেজনার ডালি সাজিয়ে এ বছরের শেষ দিকে আবার আসছে অ্যাশেজ। নভেম্বরে শুরু হতে যাওয়া পাঁচ ম্যাচের সিরিজের আগে বাংলাদেশের বিপক্ষে লড়াইটা হলো স্মিথদের চূড়ান্ত প্রস্তুতির জায়গা। তাই টাইগারদের বিপক্ষে সিরিজটি অস্ট্রেলিয়ার জন্য ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। ইংলিশদের বিপক্ষে অ্যাশেজ শুরুর তিন মাস আগে দল নির্বাচন ও পারফরম্যান্স ঝালাই করে নেওয়ার সুযোগও এখানে। বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজে চোটের কারণে অস্ট্রেলিয়া পাচ্ছে না মিচেল স্টার্ক ও জেমস প্যাটিনসনকে। তাদের অনুপস্থিতিতে প্যাট কামিন্স ও জ্যাকসন বার্ড সুযোগ পাচ্ছেন নিজেদের প্রমাণ করার। অ্যাশেজে স্টার্ক ও জশ হ্যাজেলউডের সঙ্গে তৃতীয় পেসার হিসেবে কে দলে থাকছেন, সেটা ঠিক হয়ে যেতে পারে বাংলাদেশ সিরিজ দিয়েই। ব্যাটিং অর্ডারের পরীক্ষা করে নেওয়ারও সুযোগ পাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া। অ্যাশেজের একাদশে অধিনায়ক স্মিথ ও পিটার হ্যান্ডকম্বের জায়গাটা মোটামুটি নিশ্চিত, তবে বাকি জায়গাগুলো নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ।

▶র‌্যাংকিং নিয়ে ভীষণ চাপে অস্ট্রেলিয়া:

এই মুহূর্তে আইসিসির টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে তৃতীয় স্থানে আছে অস্ট্রেলিয়া। ক্রিকেটের লম্বা সংস্করণে এই বছরের শুরুর দিকে ভারতের বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে হারের পর আর কোনও ম্যাচ না খেলায় র‌্যাংকিংয়ে কোনও বদল হয়নি তাদের। তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজে বদলে যেতে পারে তাদের র‌্যাংকিংয়ের চিত্র। সেটা এতটাই যে, এক ধাক্কায় স্মিথরা নেমে যেতে পারে সাত নম্বরে! বাংলাদেশের বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশ হলেই র‌্যাংকিংয়ে ব্যাপক অবনতি হবে তাদের। এমনকি সিরিজ ড্র হলেও অস্ট্রেলিয়া নেমে যাবে পাঁচে। আবার ২-০ ব্যবধানে অস্ট্রেলিয়া সিরিজ জিতলেও চতুর্থ স্থানে নেমে যেতে হবে যদি ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করে ইংল্যান্ড। এর মানে বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজটি অস্ট্রেলিয়ার জন্য র‌্যাংকিং-পরীক্ষাও!

▶উপমহাদেশে অস্ট্রেলিয়ার বাজে পারফরম্যান্স:

ভারতের বিপক্ষে গত ফেব্রুয়ারি-মার্চে অস্ট্রেলিয়া সিরিজ হেরেছিল ২-১ ব্যবধানে। হারলেও অস্ট্রেলিয়ার পারফরম্যান্স কুড়িয়েছিল প্রশংসা। যদিও এশিয়ার রেকর্ড তাদের জন্য কঠিন হতাশার। উপমহাদেশের কন্ডিশনে সবশেষ চার সিরিজের সবক’টিতে হেরেছে অস্ট্রেলিয়া। ১৩ টেস্টের মধ্যে হেরেছে ১১টি, আর জয় পেয়েছে মাত্র একটিতে। এশিয়ার মাটিতে তারা সবশেষ টেস্ট সিরিজ জিতেছিল ২০১১ সালে, যেটা আবার ছিল অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্কের প্রথম টেস্ট। তবে আশার বাণী শুনতে পাচ্ছে প্রতিপক্ষটা বাংলাদেশ বলে। টাইগারদের বিপক্ষে খেলা একমাত্র টেস্ট সিরিজটি অস্ট্রেলিয়া জিতেছিল ২-০ ব্যবধানে।


আইপিএলে সতীর্থদের সঙ্গে ওয়ার্নার ও মোস্তাফিজ
মোস্তাফিজ বনাম ওয়ার্নার:

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) দুই সতীর্থদের লড়াই দেখার সুযোগ করে দিচ্ছে এই টেস্ট সিরিজ। আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করা মোস্তাফিজুর রহমান ও ডেভিড ওয়ার্নার দাঁড়িয়ে যাবেন প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে। বৈচিত্র্যময় বোলিংয়ে মাত্র কিছুদিনেই ক্রিকেট বিশ্বে আলোড়ন তৈরি করা মোস্তাফিজের ভীষণ ভক্ত ওয়ার্নার। তাদের মুখোমুখি লড়াই বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজে যোগ করবে বাড়তি উত্তেজনা। চোটের কারণে অবশ্য টেস্ট ক্রিকেট খুব একটা ম্যাচ খেলার সুযোগ হয়নি ‘ফিজ’-এর। মাত্র চার টেস্ট খেলা এই পেসার অবশ্য এখন কঠিন অনুশীলন করছেন বোলিং কোচ কোটর্নি ওয়ালশের অধীনে। ক্রিকেট ডটকম

জানা হবে অনেক কিছু, চালু হয়েছে জানাবিডি (JanaBD) এন্ডয়েড এপস । বিস্তারিত জানুন..

Googleplus Pint
Mizu Ahmed
Manager
Like - Dislike Votes 0 - Rating 0 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)