JanaBD.ComLoginSign Up

একাকীত্ব থেকে মুক্তির উপায়!

লাইফ স্টাইল 28th Apr 2016 at 1:49pm 726
একাকীত্ব থেকে মুক্তির উপায়!

মাঝে মাঝে একাকীত্ব মন্দ নয়। অনেকেই তা উপভোগও করে থাকেন। একাকীত্ব শুধু নির্জনতায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের মাঝেই হয় না, চারপাশে বহু মানুষ থাকার পরও একাকীত্ব আসতে পারে এবং অনেকের কাছেই এটা হতাশাজনক হতে পারে।

নানা কারণেই আমরা একাকীত্বে ভুগতে পারি। এসব কারণের মধ্যে রয়েছে অন্যের দ্বারা প্রত্যাখ্যাত হওয়া, সামাজিকতায় উদ্বেগ বা ভীতি, অতিরিক্ত কাজের চাপ, ইন্টারনেট আসক্তি ইত্যাদি।

তবে কেউ যদি দীর্ঘমেয়াদী একাকীত্বে আক্রান্ত হন তাহলে তা ব্যক্তিগত ক্ষতির কারন হতে পারে। এর ফলে বড় কোন মানসিক রোগ হওয়াটাও বিচিত্র নয়। তবে ভয় পাওয়ার কারণ নেই। কিছু উপায় অবলম্বন করে এ সমস্যা কাটিয়ে ওঠা যায়। আজ সেরকম কিছু ব্যাপার নিয়েই আলোচনা করা যাক।


১) নিজেকে গ্রহণ করুন
আপনার নিজের মানসিক অবস্থাকে গ্রহণ করুন। একাকীত্বকে মেনে নিন। সমস্যা মেনে নিলে তা সমাধানের উপায়ও আপনি হাতে পেয়ে যাবেন। কিন্তু সমস্যাটি যদি মানতেই না চান তাহলে তার সমাধানও কঠিন হয়ে পড়ে। নিজের অসুবিধা নিয়ে খোলামনে নিজের সাথে কথা বলুন।


২) সামাজিক হোন
আপনার যেমন মানুষ পছন্দ, যাদের সঙ্গে আপনার ভালো মিলে, তাদের সঙ্গেই বন্ধুত্ব করুন। তাদের সঙ্গে আপনার ভালোলাগার বিষয়গুলো বিনিময় করুন। যাদের সাথে মিশতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন না, তাদের সাথে জোর করে সময় কাটাবেন না। এতে মানুষ সম্পর্কে আপনার বিরূপ মনোভাব জন্ম নিতে পারে।


৩) যোগাযোগ রাখুন
পরিচিত বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন। তাদের সঙ্গে টেলিফোনে কিংবা সরাসরি কথা বলুন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম, ইমেইল কিংবা মোবাইল ফোনের বার্তা শুধু নয়, সরাসরি কথা বলুন। তাদের সাথে আড্ডা দিন। প্রানখুলে কথা বলুন।


৪) স্বেচ্ছাসেবী হোন
পৃথিবীতে অনেক অসহায় মানুষের নানারকম সাহায্যের প্রয়োজন আছে। সময় পেলে তাদের সাহায্য করার চেষ্টা করুন। সাহায্যের প্রয়োজন এমন মানুষদের জন্য স্বেচ্ছাশ্রম দিন। কোনো প্রতিদানের আশা না করে দুর্গতদের জন্য শ্রম দিতে পারলে তা আপনার মন সতেজ রাখবে।


৫) নেতিবাচকতা ঝেড়ে ফেলুন
কোনো বিষয়কে হতাশাজনক দৃষ্টিতে না দেখে বরং ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখুন। গ্লাসের অর্ধেকটা পানি থাকলে তা অর্ধেক খালি হিসেবে নয় বরং অর্ধেক ভরা হিসেবেই দেখুন।

নানা ব্যক্তির উৎসাহমূলক বক্তব্য শুনুন এবং আপনার মনের নেতিবাচকতা কাটিয়ে উঠুন। অন্যদের উৎসাহ দিন। যে সবসময় সমালোচনা করে তাকে কেউ বেশিদিন খুব একটা পছন্দ করে না।


৬) মেনে নিতে শিখুন
মানুষ সমাজে অনেকের সাথে মিলে থাকে। সমাজের সব মানুষ আপনার মনের মতো হবে না হয়ত। আমরা সারাজীবনে খুব অল্পসংখ্যক মনের মত মানুষের দেখা পাই। তবে তাই বলে যাদের অপছন্দ করি তাদের ঘৃনা করলে নিজেরই মানসিক অশান্তি বাড়বে।

তাই বাস্তবতাকে মেনে নিতে হবে। অপছন্দের মানুষদের ত্রুটিগুলো আস্তে আস্তে মেনে নিতে শিখুন- ত্রুটি থাকবেই।


৭) থেরাপি
ওপরের পদ্ধতিগুলো যদি কাজ না করে তাহলে সমস্যা সমাধানের জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া যেতে পারে। এক্ষেত্রে ভালো কোনো মনোবিদের শরণাপন্ন হয়ে থেরাপি নেওয়া যেতে পারে। অনেকসময় এসব থেরাপি বেশ ভালো কাজে দেয়।
শুভকামনা একটি সুন্দর জীবনের জন্য।

Googleplus Pint
Noyon Khan
Manager
Like - Dislike Votes 4 - Rating 5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)