JanaBD.ComLoginSign Up

Internet.Org দিয়ে ফ্রিতে ব্রাউজ করুন আমাদের সাইট :) Search করুন , "জানাবিডি ডট কম" পেয়ে যাবেন ।

ঘরে তৈরি করুন ডার্ক সার্কেল রিডিউসিং আই প্যাড

রূপচর্চা/বিউটি-টিপস 29th May 2016 at 9:38pm 282
ঘরে তৈরি করুন ডার্ক সার্কেল রিডিউসিং আই প্যাড

আমাদের অনেকেরই চোখের চারপাশে ডার্ক সার্কেল তৈরি হয়। আলসেমির কারণে চোখের নিচের ফোলা, টায়ার্ডভাব ও ডার্ক সার্কেল কমাতে সঠিক আন্ডার আই ট্রিটমেন্ট ক্রিমের যেমন বিকল্প নেই তেমন শসা কুচিও চোখের নিচের স্কিনের জন্য অত্যন্ত ভালো। কিন্তু আলসেমির কারণে নিয়মিত কিছুই করা হয় না এবং অনেক টাকা ঠিকই খরচ হয়ে যায় কিন্তু চোখের নিচের স্কিনের কোন উন্নতি চোখে পরে না।

যারা তীব্র রোদ, গরমে চোখের সেনসিটিভিটি এবং চোখের নিচের স্কিনের ঝুলেপড়া, ফোলা ভাব ইত্যাদি সমস্যায় ভুগছেন তারা এটা ট্রাই করে দেখলে ভালো ফল পাবেন আশা করি।

যা যা লাগবে:
একটি ছোট সাইজের আস্ত কচি শসা,
১০-১২টা কটন প্যাড (যেকোনো ফার্মেসি/কসমেটিক শপে পাবেন),
একটা প্লাস্টিকের ব্যাগ (জিপ লক ব্যাগ পাওয়া গেলে ভালো হয়),
কয়েক ফোঁটা পিওর ভিটামিন 'ই' অয়েল (১টা ভিটামিন 'ই' ক্যাপসুলের ভেতরের অয়েল)।

এবার দেখে নিই পদ্ধতি:
প্রথমে শসাটি ধুয়ে ছিলে নিয়ে ছোট টুকরা করে ব্লেন্ডারে মিহি করে ব্লেনড করুন। এবারে এই মিহি শসার পেস্টের ভেতরে ভালোভাবে ভিটামিন 'ই' অয়েলটুকু মিশিয়ে নিন। ভিটামিন 'ই' অয়েল আপনার আই প্যাডগুলো একটু বেশিদিন ভালো রাখবে এবং চোখের নিচের শুষ্ক, কালচে ভাব এবং বয়সের ছাপ দূর করবে। এবারে আপনার সবগুলো কটন প্যাড একে একে এই শসার পেস্টের মিশ্রণে ভিজিয়ে নিন। চাইলে ৩-৪ মিনিট পাত্রের মধ্যে প্যাডগুলো রেখে দিতে পারেন। ভালোভাবে ভেজার জন্য। এবারে কটন প্যাডগুলো আপনার জিপলক প্লাস্টিক ব্যাগে ভরে আটকে দিন। নরমাল স্বচ্ছ প্লাস্টিকের ব্যাগ ইউজ করলে ভালোভাবে মুখ বেধে রাখুন। এবারে প্যাডে ভর্তি ব্যাগটি ডিপ ফ্রিজে ঢুকিয়ে রাখুন। ব্যাস হয়ে গেল আপনার হোমমেড আই প্যাড!

কিভাবে ব্যবহার করবেন?
এভাবে তৈরি আই প্যাড প্রায় ৪-৫ দিন ভালো থাকবে। যখনি দরকার (বাইরে থেকে এসে/ঘুমানোর আগে) ২টি প্যাড বের করে নিয়ে একটি বাটিতে বরফ গলানোর জন্য ৫ মিনিট রাখুন। এরপর ১০-১৫ মিনিটের জন্য আই প্যাড চোখের ওপরে রেখে রিলাক্স করুন। শসার টুকরো চোখে দেয়া/শসা কুচি করে চোখের ওপর দেয়ার চেয়ে এই পদ্ধতি অনেক বেশি সময় সাশ্রয়ী এবং ঝামেলাহীন এবং আপনার আশপাশ থেকে ধুলোবালি শসার কুঁচিতে লাগার ঝামেলাও নেই।

সুতরাং, আশা করি যারা কাজের ভয়ে শসা কুচির মতো ইফেকটিভ উপায় ট্রাই করার সাহস করেন না, তারা এক ধাক্কায় সপ্তাহ পার করার এই সহজ উপায় অবশ্যই ট্রাই করবেন।

Googleplus Pint
Like - Dislike Votes 11 - Rating 5.5 of 10
Relatedআরও দেখুনঅন্যান্য ক্যাটাগরি

পাঠকের মন্তব্য (0)